অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ও কন্যা হত্যার দায়ে আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর

সারাবাংলা

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ও দুই বছর বয়সী শিশু কন্যাকে হত্যার দায়ে লক্ষীপুরের রামগতির এক ব্যক্তির ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে। রবিবার রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার পার্ট-২ এ বন্দি আব্দুল গফুর নামে ওই কয়েদির ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে বলে কারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

ফাঁসি কার্যকর হওয়া আব্দুল গফুর লক্ষীপুরের রামগতি থানার দক্ষিণ চর লরেন্স এলাকার শামসুল হকের ছেলে। ফাঁসি কার্যকরের সময় গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবুল কালাম আজাদ, জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ খায়রুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

কাশিমপুর কারাগার-২ এর সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল জলিল রায় কার্যকরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার ২ এর জেলার মো. আবু সায়েম জানান, ২০০৬ সালে লক্ষীপুরের রামগতি থানার দক্ষিণ চর লরেন্স এলাকায় ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ও দুই বছরের শিশু কন্যাকে হত্যা করে আব্দুল গফুর। এ ঘটনায় রামগতি থানায় হত্যা মামলা করা হয়। মামলায় ২০০৮ সালে আদালত আব্দুল গফুরকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। এরপর আসামিপক্ষ উচ্চ আদালতে আপিল করলেও তার মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকে। পরে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চেয়ে আবেদন করলেও তা খারিজ করে দেয়া হয়। সকল আইনি প্রক্রিয়া শেষে রবিবার রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে আব্দুল গফুরকে জল্লাদ শাহজাহান ভূইয়া ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেন। ফাঁসির পর মরদেহ নিহতের বড় ভাই মো. আব্দুল ও মো. হানিফের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *