অস্থির চালের বাজার, বিপাকে ক্রেতা

জাতীয়

আলমগীর ইসলাম, জৈষ্ঠ প্রতিবেদক:

সরকার বাজার নিয়ন্ত্রনের জন্য চালের দাম নির্ধারণ করে দিলেও রাজধানীসহ সাড়া দেশেই চড়া দরেই বিক্রি হচ্ছে চাল। ক্রেতাদের অভিযোগ মুল্য নিয়ন্ত্রনে সরকারের ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা কোনভাবে কাজে আসছে না। ফলে লাগামহীনভাবে বেড়ে চলেছে চালের বাজার। এমন পরিস্থিতিতে দায় কার? এই প্রশ্ন ক্রেতা সাধারণের।

রাজধানীর বাজারগুলোতে আগের চড়া দরেই বিক্রি হচ্ছে চাল। বাবুবাজারে প্রতি কেজি মিনিকেটের পাইকারি দাম ৫১ থেকে ৫৩ টাকা। আর নাজির শাইল বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৪ টাকায়। আর বিআর ২৮ বিক্রি হচ্ছে ৪৬ থেকে ৪৮ টাকায়।

রাজধানীর পাইকারি আড়ত বাবুবাজারে চালের দামের তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। গত সপ্তাহের দামেই চাল বিক্রি হচ্ছে। আড়তদাররা জানান, মোকাম থেকে নতুন চাল আড়তে আসেনি। তাই সরকার বেঁধে দেয়ার পরও দাম কমেনি।

আড়তদাররা বলছেন, এখনকার মজুদ শেষ হলে এক সপ্তাহ থেকে ১০ দিন পর নতুন চাল কিনবেন। তখন যদি মিলাররা কম দামে চাল দেয়, তাহলে তারা কম দামে চাল বিক্রি করতে পারবেন। তবে নতুন করে চাল কিনলেও এখনকার চেয়ে বড়জোর ১/দেড় টাকা দাম কমতে পারে বলে জানান বাবুবাজারের আড়তদাররা।
এদিকে, বাজারে বাড়ছে সয়াবিন তেলের দাম।

যাত্রাবাড়ী বাজারঘুরে কথা হয়, আবুল হোসেন নামে এক ক্রেতার সাথে। এসময় তিনি ঢাকা প্রতিদিনকে জানান, “চালের বাজার যেভাবে অস্থির হয়ে উঠছে, তাতে আমরা চরমভাবে বিপাকে পড়েছি। সরকার চালের মূল্য নির্ধারণ করে দিলেও তা মানছে না চাল বিক্রেতারা।”

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *