https://www.dhakaprotidin.com/wp-content/uploads/2021/01/USA-Air-Dhaka-Protidin-ঢাকা-প্রতিদিন.jpg

মার্কিন বোমারু বিমান মধ্যপ্রাচ্যের আকাশে, টানটান উত্তেজনা

আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতার একদম শেষপ্রান্তে এসে যুক্তরাষ্ট্রকে আবারও বড় ধরণের কোনো সহিংসতায় জড়িয়ে ফেলতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিশেষ করে, ইরানের বিরুদ্ধে সামরিক পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। ট্রাম্প ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার মাত্র চারদিন আগে মার্কিনিরা মধ্যপ্রাচ্যের আকাশে পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম বি-৫২ বোম্বার বিমান ওড়ানোয় সেই আশঙ্কা আবারও বেড়েছে।

অবশ্য এ অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক কার্যক্রম পরিচালনাকারী কেন্দ্রীয় কমান্ড (সেন্টকম) দাবি করেছে, এটি তাদের প্রতিরক্ষা পরিকল্পনার একটি অংশ মাত্র।

এ নিয়ে গত কয়েক মাসের মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যে পঞ্চমবারের মতো বি-৫২ বোম্বার ওড়ালো মার্কিন বাহিনী। বোয়িংয়ের তৈরি বিশাল বিমানটি প্রায় ৩২ হাজার কেজি গোলাবারুদ বহনে সক্ষম।

সেন্ট্রাল কমান্ডের কমান্ডার জেনারেল ফ্র্যাঙ্ক ম্যাকেনজি বলেছেন, এ ধরনের মিশনগুলোর মাধ্যমে আঞ্চলিক সুরক্ষায় মার্কিন বাহিনী কতটা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, সেটাই দেখানো হচ্ছে।

তিনি বলেছেন, কৌশলগত সম্পদের সাময়িক মোতায়েন এই অঞ্চলে আমাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আঞ্চলিক অংশীদারদের সঙ্গে প্রশিক্ষণের সুযোগ তৎপরতা বৃদ্ধি করে এবং মিত্র ও সম্ভাব্য প্রতিপক্ষগুলোর কাছে একটি পরিষ্কার বার্তা পৌঁছে দেয়।

যুক্তরাষ্ট্র মুখে তেহরানকে উসকানি দেয়ার বিপক্ষে দাবি করলেও গত কয়েক সপ্তাহে ইরানের বিরুদ্ধে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে।

ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন বোম্বার বিমান ওড়ানোর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। এক টুইটে তিনি বলেছেন, এটি তেহরানকে উসকানি দেয়ার একটি প্রচেষ্টা মাত্র। এভাবে সামরিক বাহিনীর পেছনে শত কোটি ডলার ব্যয় না করে সেই অর্থ মার্কিনিদের স্বাস্থ্যসেবায় ব্যয়ের পরামর্শ দিয়েছেন জাভেদ জারিফ।

প্রতিপক্ষকে হুঁশিয়ারি দিয়ে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, আমরা গত ২০০ বছরের মধ্যে কোনো যুদ্ধ শুরু না করলেও আক্রমণকারীদের পিষে ফেলতে লজ্জাবোধ করব না।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে গত দুই সপ্তাহে চারবার বড় আকারের সামরিক মহড়া দিয়েছে ইরান। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার ওমান উপসাগরে সামরিক মহড়া চালিয়েছে দেশটির নৌবাহিনী। আর ইরানি সেনাবাহিনী ড্রোন মহড়া চালিয়েছে গত ৫ ও ৬ জানুয়ারি।

সূত্র: আল জাজিরা

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *