আদর্শ নিয়ে না চললে কখনো সফল হবে না : প্রধানমন্ত্রী

জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক : বঙ্গবন্ধু কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাত্রলীগকে আরও বেশি শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে সংগঠনটির নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।

সোমবার (৪ জানুয়ারি) বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

তিনি বলেছেন, ‘ছাত্রলীগের প্রত্যেকটি নেতাকর্মীকে আদর্শ নিয়ে চলতে হবে। আদর্শ নিয়ে না চলতে পারলে কখনো সফল হতে পারবে না। ধন-সম্পদ অনেকেই বানাতে পারবে কিন্তু দেশকে কিছুই দিতে পারবে না। মানুষকে কিছুই দিতে পারবে না। নিজে ভোগ করতে পারবে। আমরা বলব তোমরা সবাই পড়াশোনা করো।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছাত্রলীগের মূলমন্ত্র— শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতি। কাজেই শিক্ষা হচ্ছে এক নম্বর। শিক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে শান্তি আমরা চাই। এটা জাতির পিতা আমাদের দিয়ে গেছেন। সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়। আমরা শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চাই। বাংলাদেশ হবে অসম্প্রদায়িক চেতনার, ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। আমরা সংঘাত চাই না। আমরা শান্তি চাই। সেই শান্তির পথ ধরে আমরা প্রগতির পথে যেতে চাই। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবো সেই লক্ষ্য থাকবে।’

শিক্ষার ওপর গুরুত্ব দিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জ্ঞান যত অর্জন করতে পারবে নিজেকে ততই সম্পদশালী মনে করবে। করোনাভাইরাস শিক্ষা দিয়ে গেছে, ধন-সম্পদ কাজে লাগে না। যার যতই টাকা পয়সা থাকুক, যার যতই অর্থসম্পদ, বাড়ি-গাড়ি যা কিছুই থাকুক না কেন, তার কোনো মূল্য থাকে না। কিন্তু শিক্ষা ও বিদ্যা এমন একটা সম্পদ যা কেউ কেড়ে নিতে পারে না। এ সম্পদ থাকলে জীবনে কখনও হোঁচট খাবে না। চলার পথ মসৃণ করে এগিয়ে যেতে পারবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কোনো কাজই অবহেলার না, কোনো কাজই ছোট না। আমরা ভাত খাই, আমরা খাবার খাই। খাবারের ফসল ফলাই। সেই কৃষককে কিন্তু অবহেলার চোখে দেখার না। তারা আমাদের বেঁচে থাকার রসদ জোগায়। তাদের সম্মান অনেক বড়। ছাত্রলীগ ধান কেটে প্রমাণ করেছে কোনো কাজকে তারা ছোট করে দেখেনি।’

কাজের প্রতি গুরত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যখনই গ্রামে বা দেশে যাবে, কাউকে বা কোনো কাজকে ছোট করে দেখবে না। সব কাজেরই গুরুত্ব আছে। সব কাজেরই মূল্য আছে। এটাই মানতে হবে। এটাই আদর্শ হিসেবে নিতে হবে। নিজেকে যে ছোট করে দেখতে পারে সেই বড় হয়। ওপরের দিকে তাকিয়ে চলতে গেলে হোঁচট খেতে হয়। সেজন্য মাটির দিকে তাকিয়ে চলতে হয়।’

সভায় সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য সঞ্চালনা করেন। এ সময় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতাসহ কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *