আধুনিক সড়কবাতি সৌন্দর্য বাড়াচ্ছে

সারাবাংলা

রাজশাহী সংবাদদাতা : শিক্ষানগরী রাজশাহী এখন সৌন্দর্যেরও নগরী। শহর ঘুরলেই শুধু চোখে পড়ে সবুজের সমারোহ আর ফুলের সৌন্দর্য। গাছের সবুজ পাতার মাঝে লাল, হলুদ, বেগুনি আবার কখনো সাদা ফুল। ফুলের এমন সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারা যাবে রাজশাহী নগরীর প্রায় প্রতিটি সড়কে। সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে লাগানো হয়েছে এমন সুন্দর ফুলগাছসহ আরো অনেক দৃষ্টিনন্দন গাছ। গাছগুলো সজীবতা ও সৌন্দর্য ছড়িয়ে দিচ্ছে যাত্রী ও পথচারীদের মাঝে। রাজশাহী বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী মেট্রোপলিটন শহর। পদ্মার ধার ঘেঁষা সবুজ এ শহরটি উত্তরবঙ্গের সবচেয়ে বড় শহর। রেশম, শিক্ষা ও সবুজ-নগরী রাজশাহীর রয়েছে শত বছরের ইতিহাস। ৩৭ দশমিক ৩৩ বর্গ মাইলের সম্ভাবনাময় এ শহরটি সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের হাত ধরে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আধুনিকতার ছোঁয়ায় নতুনত্বের প্রকাশ ঘটছে সর্বত্র। ঐতিহ্যকে ধারণ করে বিভিন্ন উন্নয়নের ছোঁয়া নগরীর রাস্তাঘাটে। ঐতিহ্যের বিভিন্ন নিদর্শন সংস্কারের পাশাপাশি নির্মাণ করা হচ্ছে বিভিন্ন স্থাপনা।

বাতাসে ভাসমান মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কণা দ্রুত কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে বিশ্বে সবচেয়ে এগিয়ে আছে রাজশাহী শহর। এসব খ্যাতি ও সুনাম নিয়ে যখন রাজশাহী শহর উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলেছে ঠিক তখন নগরীকে আরো আলোকিত করে সৌন্দর্য বাড়াতে নতুন মাত্রায় যোগ হয়েছে দৃষ্টিনন্দন আধুনিক সড়কবাতি। রাজশাহী মহানগরীর বহরমপুর রেলক্রসিং থেকে কাশিয়াডাঙ্গা মোড় পর্যন্ত সড়ক চারলেনে উন্নীতকরণ কাজ শেষ হয়েছে। এরপর শুরু হয়েছে সড়কের আইল্যান্ডে দৃষ্টিনন্দন আধুনিক সড়কবাতি বসানোর কাজ। বুধবার দুপুরে বহরমপুর রেলক্রসিং এলাকায় সড়কবাতির খুঁটি বসানোর কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। দৃষ্টিনন্দন সড়কবাতির খুঁটিগুলোর মাথায় রয়েছে সুন্দর ফুল আঁকানো হলুদ রঙের ফ্রেম। মধ্যে ও নিচে রয়েছে হলুদের ঢেউ। সব মিলিয়ে চমৎকার ও দৃষ্টিনন্দিত একটি সড়কবাতির খুঁটি। বহরমপুর রেলক্রসিং থেকে কাশিয়াডাঙ্কা মোড় প্রায় সাড়ে চার কিলোমিটার পর্যন্ত প্রশস্ত সড়কটি দিনের বেলায় দেখতে চোখ জুড়িয়ে যাচ্ছে। মন কাড়ছে পথচারীদেরও। অনেকে মাঝপথে থেমে সড়কবাতির খুঁটির সঙ্গে সেলফি তুলে মনের খোরাক মেটাচ্ছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী হিমেল বলেন, সড়কবাতিগুলো দিনে যেমন সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে রাতেও তেমন চকচক করবে। আসলে খুবই ভালো লাগছে। পথচারী আল রাফিন বলেন, সড়কটি চারলেন করায় আগের চেয়ে যেমন সৌন্দর্য বেড়েছে তেমনি যানজটও কমেছে।

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, দেশের সব শহরগুলোর মধ্যে পরিচ্ছন্নতা নিয়ে কোনো প্রতিযোগিতা হলে রাজশাহী হবে এক নম্বর। কিন্তু আমরা এতেই সন্তুষ্ট থাকতে চাই না। আমরা চাই সৌন্দর্যের দিক থেকেও যেন রাজশাহী সবার ওপরে থাকে। রাজশাহীকে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে অন্যতম সেরা শহরে পরিণত করতে চাই। এজন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

সড়কটিতে ১৭৪টি খুঁটিতে বসানো হবে ৩৪৮টি আধুনিক সড়কবাতি। রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কের উন্নয়নে ১৭৩ কোটি টাকার প্রকল্পের আওতায় ২৬ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে বহরমপুর রেলক্রসিং থেকে কাশিয়াডাঙ্গা মোড় পর্যন্ত সড়কটি ৩০ ফুট থেকে ৮০ ফুটে উন্নীত করা হয়েছে। সড়কের দুই পাশে ১০ ফুট চওড়া ফুটপাত ও দক্ষিণ পাশে সাড়ে সাত ফুট ড্রেন করা হয়েছে। এছাড়া সড়কটিতে বাইসাইকেল লেন নির্মাণ করা হয়েছে। নির্মাণ করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন আইল্যান্ড।

দেশবিদেশের গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *