আফগানিস্তানে নারী বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে নারীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ!

আন্তর্জাতিক

ডেস্ক রিপোর্ট : আফগানিস্তানের নারী বিষয়ক মন্ত্রণালয়েই খোদ নারী কর্মীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তালেবান। এই ভবনটিতে শুধুমাত্র পুরুষরাই প্রবেশ করতে পারবে বলে মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। ভারতের সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র তাদের সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর গোটা দেশের নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতে নেয় তালেবান। তারা মন্ত্রীপরিষদে কোন নারী সদস্য রাখেনি। এমনকি গত বৃহস্পতিবার থেকে নারী বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভবনও তালাবন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

নারী কর্মীরা জানিয়েছেন, গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই তারা কাজে আসছেন। কিন্তু তাদেরকে শুধুমাত্র ঘরে ফিরে যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এ ঘটনায় মন্ত্রণালয়ের বাইরে আন্দোলন করার চেষ্টা করেন নারী কর্মীরা। এ বিষয়ে অবশ্য তালেবান মুখপাত্রের পক্ষ থেকে কিছু বলা হয়নি।

বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, ২০ বছর পর পুনরায় আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর তালেবানের শাসন ব্যবস্থায় দেশটির নারীদের অনিশ্চিত ভবিষ্যত বরণ করতে হবে। ২০০১ সালের সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারে সন্ত্রাসী হামলার পর আফগানিস্তানে মার্কিন অভিযানে তালেবান ক্ষমতাচ্যুত হয়।

এর আগে তালেবান পরিচালিত অতি রক্ষণশীল ইসলামিক শাসন ব্যবস্থায় পাথর নিক্ষেপ, বিচ্ছেদ এবং মৃত্যুদণ্ড দেওয়া ছিল নিয়মিত ঘটনা। ইসলামের কঠোর ব্যাখ্যা অনুযায়ী, দেশ শাসন করা তালেবানদের অধীনে নারীদেরকে মূলত ঘরেই সীমাবদ্ধ রাখা হতো।

এদিকে, কাবুল দখলের পর প্রথমবারের মতো কড়া চাপের মুখে গত মাসে তালেবানরা নিশ্চিত করে যে, ইসলামের দৃষ্টিকোন থেকে নারীদেরকে তাদের প্রাপ্য অধিকার দিতে দলটি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ প্রসঙ্গে তালেবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মোজাহিদ বলেছেন, ‘ইসলাম অনুযায়ী নারীদেরকে তাদের প্রাপ্য অধিকার দিতে তালেবানরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। নারীরা স্বাস্থ্য খাতসহ অন্যান্য যেখানে প্রয়োজন হবে কাজ করবে। নারীদের সঙ্গে কোনো ধরনের বৈষম্যমূলক আচরণ করা হবে না।’

যদিও গত মাসে ক্ষমতায় আসার পর থেকে তালেবানদের নেওয়া পদক্ষেপে এ ধরনের কোন লক্ষণ প্রকাশ পায়নি। বরং দেখা গেছে, তারা নারী অধিকার রক্ষায় যে সম্মান প্রদর্শনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তা থেকে সরে এসেছে। এমনকি নারীদের জন্য সহশিক্ষাও নিষিদ্ধ করেছে তালেবান।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *