আরও একটি হতাশার হার বাংলাদেশর

খেলাধুলা লিড ১

খেলাধুলা ডেস্ক: বুধবার (২৭ অক্টোবর) আবুধাবিতে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১২৪ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। জবাবে মাত্র ২ উইকেট হারিয়েই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় ইংলিশরা। বাকি ছিল আরো ৩৫ বল।

ইংল্যান্ডের হয়ে রান তাড়া করতে নামেন জেসন রয় ও জস বাটলার। উদ্বোধনী জুটিতে দুজনে যোগ করেন ৩৯ রান। ১৮ রান করে নাসুম আহমেদের বলে বাটলার ফিরলে ইংল্যান্ডকে এগিয়ে নেন রয় ও ডেভিড মালান।

জাতীয় দলের হয়ে নিজের ৫০তম ম্যাচে ব্যাট হাতে বিধ্বংসী ছিলেন রয়। মাত্র ৩৮ বলে ৬১ রান করে যখন তিনি আউট হন দল তখন জয় থেকে মাত্র ১৩ রান দূরে। এই ওপেনারকে ফিরিয়ে ৭৩ রানের জুটি ভাঙেন শরিফুল ইসলাম।

দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন মালান ও জনি বেয়ারস্টো। শেষ পর্যন্ত দুজন অপরাজিত থাকেন যথাক্রমে ২৮ ও ৮ রানে।

এর আগে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। দলের হয়ে ইনিংস উদ্বোধনে নামেন নাইম শেখ ও লিটন দাস।

প্রথম ওভারেই দুটি চার হাঁকান লিটন। অতি আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে তৃতীয় ওভারে মঈন আলীর বলে লিয়াম লিভিংস্টোনের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। পরের বলেই ফেরেন আরেক ওপেনার নাইম। এর আগে দুজন করেন যথাক্রমে ৯ ও ৫ রান।

দলের বিপদের মুখে সাকিব আজ ব্যর্থ হয়েছেন। তিনি ৪ রানে ফেরার পর ৩৭ রানের জুটি গড়ে বিপর্যয় সামাল দেন মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

নিজের স্বভাবসুলভ রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে ২৩ রানে আউট হন মুশফিক। এটাই বাংলাদেশের ইনিংসে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর। রিয়াদ ফেরেন ১৯ রানে। আফিফ হোসেন ৫ ও মাহেদী হাসান ১১ রান করেন।

শেষদিকে নাসুম আহমেদের অপরাজিত ১৯ রানের ক্যামিও ইনিংসে লড়াই করার মতো সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। অন্যপ্রান্তে সোহান করেন ১৬ রান। ইংল্যান্ডের হয়ে তিন উইকেট নেন টাইমাল মিলস। এছাড়া করে মঈন আলী ও লিয়াম লিভিংস্টোন দুটি এবং ক্রিস ওকস একটি উইকেট নেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *