ইতালিতে ভ্যাকসিন নিয়েও করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসক

আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইতালিতে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে ভ্যাকসিন নিয়েছিল চিকিৎসক, কিন্তু ভ্যাকসিন নেয়ার পরেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন সেই চিকিৎসক।

গত রোববার করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন তিনি। এর মাত্র ছয়দিন আগেই করোনাপ্রতিরোধী ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছিলেন ডা. আন্তোনেলা ফ্রাঙ্কো। দ্য ভয়েস অব ভেনিস নামে একটি ইতালীয় গণমাধ্যম এ তথ্য জানিয়েছে।

জানা যায়, ইতালির সিরাকুসা এলাকার আম্বার্তো আই হাসপাতালের সংক্রামক রোগ বিভাগের পরিচালক ডা ফ্রাঙ্কো গত সপ্তাহে ফাইজার-বায়োএনটেকের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন। দেশটিতে ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে প্রথম সারিতে রয়েছেন তিনি।

এক বিবৃতিতে সিসিলিয়ান স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, ডা ফ্রাঙ্কো সম্ভবত ভ্যাকসিন নেয়ার আগেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তার অবস্থা স্বাভাবিক রয়েছে। সতর্কতাস্বরূপ ডা. ফ্রাঙ্কোর সঙ্গে পালেরমো এলাকায় যাওয়া বাকি স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদেরও নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।

ইতালির সুপ্রিম স্বাস্থ্য কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ফ্রাঙ্কা লোকাতেল্লি জানিয়েছেন, ডা. ফ্রাঙ্কো ভ্যাকসিন নেয়ার পরেও করোনায় আক্রান্ত হওয়া মানেই সেটি ব্যর্থ নয়। ভ্যাকসিনটি পুরোপুরি কার্যকর হতে অন্তত দু’টি ডোজ নিতে হয়।

তিনি বলেন, গবেষণায় এটি পরিষ্কার বলা হয়েছে যে, প্রথম ডোজ পুরোপুরি সুরক্ষা দিতে পারে না। একটি ডোজ নেয়ার পরেও মানুষ করোনায় আক্রান্ত হতে দেখা গেছে। কেবল দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পরেই পূর্ণ সুরক্ষার কথা বলা যেতে পারে। অবশ্য, ভ্যাকসিন নেয়ার পরেও মানুষদের দায়িত্বশীল আচরণ করা উচিত।

এর আগে, গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে ফাইজার-বায়োএনটেকের তৈরি ভ্যাকসিন নেয়ার পরেও এক নার্স করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। ভ্যাকসিন গ্রহণের এক সপ্তাহ পরেই করোনা পজিটিভ শনাক্ত হন তিনি।

ম্যাথিউ ডব্লিউ. নামে ৪৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি ক্যালিফোর্নিয়ার দু’টি হাসপাতালে কাজ করেন। গত ১৮ ডিসেম্বর ফেসবুকের এক পোস্টে তিনি জানান, ফাইজারের ভ্যাকসিন নেয়ার পর গোটা দিন তার হাতে ব্যথা ছিল। কিন্তু এই ছাড়া আর কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনুভব করেননি।

এর ছয়দিন পরেই বড়দিনের আগ মুহূর্তে হাসপাতালে দায়িত্বপালনকালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন ম্যাথিউ। তার শরীর ঠাণ্ডা হয়ে আসে। একসময় পেশিতে ব্যথা এবং ক্লান্তিবোধ করতে থাকেন। পরে একটি অস্থায়ী হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষা করান ম্যাথিউ। এর ফলাফল আসে বড়দিনের পর। দেখা যায়, তিনি করোনা পজিটিভ।

এ বিষয়ে সান দিয়েগোর পারিবারিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ক্রিশ্চিয়ান রেমার্স বলেন, ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল থেকে আমরা জানি, ভ্যাকসিনের সুরক্ষা তৈরি হতে সেটি গ্রহণের পর অন্তত ১০ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে। তাছাড়া, প্রথম ডোজ ৫০ শতাংশের মতো সুরক্ষা দেয় বলে ধারণা করা হয়। সেক্ষেত্রে ৯৫ শতাংশ পর্যন্ত সুরক্ষা পেতে অবশ্যেই দু’টি ডোজ নিতে হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *