ঈশ্বরগঞ্জ রাস্তা পাকাকরণের কাজে বাধা দেওয়ায় ৬ মাস ধরে বন্ধ সীমাহীন দুর্ভোগ

সারাবাংলা

উবায়দুল্লাহ রুমি, ঈশ্বরগঞ্জ থেকে:
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে রাস্তা পাকাকরণের কাজে বাধা দেওয়ায় ৬ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে রাস্তাটির নির্মাণ কাজ। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এলাকাবাসী। জানা যায়, উপজেলার আঠারোবাড়ী ইউনিয়নের মৃগালী গ্রামে দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর প্রায় এক কিলোমিটার একটি রাস্তার নির্মাণ কাজ শুরু হয়। রাস্তাটি ঈশ^রগঞ্জ-আঠারবাড়ী সড়কের মৃগালী মোড় হইতে মৃগালী সিরাক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত দীর্ঘ। ৬মাস আগে (এমআরআরআইডিপি) প্রকল্পের অধিনে ৫৬ লাখ ৬৫ হাজার ৭৯৪ টাকা ব্যায়ে মেসার্স নিতি এন্টারপ্রাইজ নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রাস্তাটির পাকা করণের কাজ শুরু করে। রাস্তাটির ৪২০মিটার কাজ সম্পন্ন করার পর সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা (এসআই) শহীদুল্লাহ রাস্তা দখল করে টিনের দু’চালা ঘর ও বাঁশের বেঁড়া দিয়ে রাস্তাটির বাকী অংশ আটকে দেয়। বর্তমানে রাস্তাটিতে বর্ষার জল জমে কর্দমাক্ত হয়ে পরায় রাস্তায় হেঁটে যাওয়ারও উপায় নেই। এতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস ওই রাস্তা দিয়ে আনা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এলাকাবাসী। রাস্তাটির কাজ দ্রুত শেষ না হলে চরম ভোগান্তিতে পড়বে মৃগালী সিরাক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ৫শতাধিক শিক্ষার্থীও। রাস্তাটির কাজে বাধা দেওয়ায় এলাকাবাসি স্থানীয় চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দেয়। পরবর্তিতে চেয়ারম্যান জুবের আলম রুপক রাস্তার মধ্য থেকে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে দিতে শহীদুল্লাহকে বলেন। কিন্তু প্রায় এক মাস অতিবাহিত হলেও শহীদুল্লাহ্ রাস্তা থেকে তার অবৈধ স্থাপনা সরায়নি। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এলাকাবাসী আব্দুল হাই জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ এই কাঁচা রাস্তা দিয়েই চলাচল করছে গ্রামের লোকজন সহ স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। কিন্তু ওই রাস্তাটি পাকা করণের সময় দারোগা শহীদুল্লাহ বাধা দেওয়ায় কাজটি বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তার কিছু অংশ পুনরুদ্ধার করে কাজটি দ্রুত শেষ করতে প্রশাসনের কাছে জোড় দাবি তাদের। রাস্তার কাজে বাধা দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে শহীদুল্লাহর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাস্তাটির যে অংশটুকু আমার জায়গা দিয়ে হচ্ছে, আমি তাতে বাধা দিয়েছি। সম্পূর্ণ রাস্তা আমার জায়গা দিয়ে আমি করতে দেবো না। উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) তৌহিদ আহম্মেদ জানান, বাধাকৃত অংশটুকুর কাজ বন্ধ রয়েছে। আঠারোবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুবের আলম রুপক জানান, রাস্তাটি অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ। রাস্তাটির কাজে শহীদুল্লাহ নামের এক ব্যক্তি বাধা দিয়েছেন। তাকে অনেক বুঝানো হয়েছে কিন্তু তিনি তা বুঝতে চান না। এক ব্যক্তির বাধার কারণে হাজার হাজার মানুষ দুর্ভোগ পোহাবে এটা মানা যায় না।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *