উন্নয়ন কাজে সড়ক মেরামত, যানজটে নাকাল অফিসগামী যাত্রীরা

জাতীয়

ডেস্ক রিপোর্ট : ‘রামপুরা থেকে পান্থপথ এসেছি। যাবো মোহম্মদপুর বেড়িবাঁধ। অনেকক্ষণ দাঁড়াইয়া আছি, কোনো গাড়ি পাচ্ছি না। অফিসে সঠিক টাইমে পৌঁছাইতে পারব কি-না জানি না।’ এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন রাজধানীর মোহাম্মদপুরের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা কামরুল ইসলাম। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) সকালে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ভ্যাপসা গরম আর তীব্র যানজটে এমন নানা ভোগান্তির কথাই জানান অফিসগামী যাত্রীরা।

সরেজমিনে শাহবাগ, ফার্মগেট, বিজয় সরণি, মহাখালী, বনানী এলাকা ঘুরে দেখা যায়, মেট্রোরেলসহ নানা উন্নয়ন কাজে সড়ক বন্ধ থাকা, সড়ক মেরামত, নিষ্কাশন ব্যবস্থা সচল করতে রাস্তা কাটা ইত্যাদি নানা কারণে দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে অফিসগামীদের। আর এতেই তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয় রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে। শাহবাগ থেকে ফার্মগেট হয়ে বিজয় সরণি, ফার্মগেট থেকে পান্থপথ, মহাখালী-বনানী এলাকায়ও যানজট দেখা যায়।

তীব্র যানজট ও গরমের ভয়ে বারিধারায় অফিসে যাওয়ার জন্য শনির আখড়া থেকে সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে বের হন বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করা মেহেদী হাসান। যেখানে এক ঘণ্টায় অফিসে পৌঁছানোর কথা, সেখানে প্রায় দেড় ঘণ্টায় তিনি কেবল শাহবাগ এসেছেন।

যানজট ও গরমে নারীদের ভোগান্তি আরও চরমে। ফার্মগেটে বেশ কয়েকজন নারীকে বাসের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায়। এসময় বাস পেলেও ভিড় ঠেলে বাসে উঠতে তাদের বেগ পেতে হয়।

ফার্মগেটে বাসের জন্য দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকা অফিসগামী নাজমুন নাহার সেতু নামের এক নারী জানান, ‘আমাদের বাসে নিতে চায় না। মিরপুরে যাওয়ার জন্য গাড়িও কম। তাই প্রায় সময়ই অফিসে যেতে লেট (দেরি) হয়। এইগুলো তো আর অফিসকে বলা যায় না।’

এসময় গরমে বেশ কয়েকজনকে লেবুর পানি বা আখের রস খেয়ে গলা ভিজিয়ে নিতে দেখা গেছে। অনেকে আবার সঙ্গে করে আনা পানিও পান করছেন।

এদিকে, ভ্যাপসা গরম ও যানজটে অফিসগামী মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা কম দেখা গেছে। নির্দিষ্ট আসন ব্যতীত অতিরিক্ত বা দাঁড় করিয়ে যাত্রী না নেওয়ার কথা থাকলেও শর্ত লঙ্ঘনের চিত্র দেখা গেছে প্রায় প্রতিটি পরিবহনেই। অনেক পরিবহন নিয়ম ও শর্ত মেনে চলছে না। করোনার মধ্যে গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে যাচ্ছেন যাত্রীরা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *