একই আইন ভাঙা দুই ব্রাজিলিয়ানের কী হবে?

খেলাধুলা

ডেস্ক রিপোর্ট : ফুটবল মাঠে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা মানেই বাড়তি উত্তেজনা। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে সেই উত্তাপ দেখা মিলল ঠিকই। তবে তা ফুটবল থেকে নয়, ব্রাজিলের হেলথ অথরিটির হস্তক্ষেপে। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচ শুরু হয়েছিল যথাসময়ে। রবিবার মধ্যরাতে। তবে কোয়ারেন্টাইন বিতর্কে ম্যাচ মাঠে গড়ানোর ৫ মিনিটের মাথায় বন্ধ হয়ে যায়। সাইডলাইনে চলে হাতাহাতি ও বাকবিতণ্ডা। একটা সময় আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রা মাঠে ছেড়ে উঠে যান। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি মাঝপথে বাতিল হয়ে যায়।

জানা যায়, ব্রাজিলিয়ান হেলথ রেগুলেটরি এজেন্সি (আনভিসা) আগেই জানিয়ে রেখেছিল, কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া অ-ব্রাজিলিয়ানদের জন্য কিছু দেশ থেকে ব্রাজিলে প্রবেশ নিষিদ্ধ। সেওসব দেশগুলো ব্রিটেন, উত্তর আয়ারল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ভারত। আর যাদের ছাড় দেওয়া হবে তাদের অবশ্যই ব্রাজিলে আসার সময় অবগত করতে হবে কর্তৃপক্ষকে এবং বাধ্যতামূলক ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন করতে।

এসবের তোয়াক্কা না করে মাঠে নামায় আর্জেন্টাইন ফুটবলার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্তিনেস, ডিফেন্ডার ক্রিস্তিয়ান রোমেরো ও মিডফিল্ডার জিওভানি লো সেলসোর খেলা নিয়ে আপত্তি জানায় স্বাথ্য কর্মীরা। এরপর স্থগিত হয়ে যায় ম্যাচ। তাতে এদিনই ব্রাজিল ছেড়ে যায় আর্জেন্টিনা দল। অথচ কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম ভেঙে দিব্যি ঘুরে বেড়ানোর অভিযোগ উঠেছে দুই ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার উইলিয়ান ও পেরেইরার বিরুদ্ধে।

দলবদলে আর্সেনাল থেকে করিন্থিয়ান্সে যোগ দেয়া উইলিয়ান গত পাঁচ দিন আগে দেশে ফেরেন লন্ডন থেকে। অথচ তিনি আনভিসার দেওয়া কোয়ারেন্টাইনের তোয়াক্কা করেননি। এছাড়া একই ঘটনা ঘটান ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে ধারে ফ্লামেঙ্গোতে যোগ দেওয়া পেরেইরাও।

এ ব্যাপারে আনভিসা প্রেসিডেন্ট বাররা তোরেস জানিয়েছেন, “আমি জানতাম না উইলিয়ানের বিষয়টি। এখন যা শুনছি এতা কিন্তু এটা স্বাস্থ্য সংক্রান্ত গুরুতর অপরাধ। এর জন্য তাকে শাস্তি পেতে হবে। এটা দেশের জাতীয় আইন। এই আইন সবার জন্য সমান।।”

যদিও উইলিয়ান ও পেরেইরার কেউই ব্রাজিলের স্কোয়াডে ছিলেন না। এমন কী গত সপ্তাহে চিলির বিপক্ষে ম্যাচটিতেও দলে ছিলেন না দু’জন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *