এক কলেই ভাঙবে প্রিয়জনের ভুল ধারণা

লাইফ স্টাইল

লাইফ স্টাইল ডেস্ক:  স্বামী-স্ত্রী বা প্রেমিক-প্রেমিকা, সম্পর্ক যেমনই হোক না কেন তার জন্য একে অপরের প্রতি টান থাকা জরুরি। আধুনিক ও সামাজিক মাধ্যমের যুগে এখন যোগাযোগের অন্যতম বিষয় হয়ে উঠেছে মেসেজ করা।

অনেকেই আছেন যারা দিনের বেশিরভাগ সময় দূরে থাকলে মেসেজেই কাজ চালিয়ে নেন। কল করে কথা বলার সময় হয়ে ওঠে না বা ইচ্ছা করে না। তবে এই অভ্যাসটি সুবিধাজনক নয়। কারণ মেসেজের চেয়ে কল করলেই সেটি সম্পর্কে বেশি প্রভাব ফেলে।

ধরা যাক আপনি বাড়ি থেকে বেশ দূরত্বে থাকেন। প্রিয়জনের সঙ্গে দেখা খুব একটা হয়ে উঠে না। এমনটি হলে নিয়ম করে ভিডিও কল বা সাধারণ কল করে কথা বলতে পারেন। এটি একে অপরের প্রতি ভালো প্রভাব ফেলবে।

সারাদিনের ব্যস্ততার পর অনেকেই আর বাড়ি ফিরে ফোনের দিকে তেমন নজর দেন না। তখন প্রিয়জন টেক্সট করলেও উত্তর দেওয়ার কথা খেয়াল থাকে না অনেক সময়েই।

এবার যিনি টেক্সট পাঠিয়েছেন তিনি ভাবছেন, উদ্দিষ্ট ব্যক্তি তাকে এড়িয়ে যাচ্ছেন। আর তাই সেখান থেকে অযথাই ভুল ধারণা জন্মায়। এর থেকে একটা ফোনকল অনেক বেশি নিরাপদ। ভুল বোঝার কোনো সুযোগ থাকে না।

কাজের ফাকে যদি প্রিয়জনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন অল্প করে। তাহলে কাজের শক্তি বাড়ে। নতুন উদ্যোমে কাজও শুরু করা যায়। মনের মধ্যে জমে থাকা কথা বলে ফেলার মতো সুখ কিছুতে নেই।

ফোন করলে কিন্তু সম্পর্কেও উন্নতি হয়। দূরে থাকা প্রেমিক প্রেমিকা যতই সারাদিন টেক্সটের ভরসায় থাকুন না কেন, সপ্তাহন্তে একে অপরকে ফোন কলই ভুলিয়ে দেয় অনেক দুঃখ। প্রিয় মানুষের গলা শুনলেও থাকে মানসিক শান্তি।

সোশ্যাল মিডিয়া কিংবা টেক্সট ম্যাসেজে অনেকেই স্বল্পে কোনো লৌকিকতা সেরে ফেলেন। নববর্ষ, শুভবিজয়া জন্মদিনের শুভেচ্ছা সবই এখন আসে ভার্চুয়ালি। ধরা যাক কারোর কোনো খুশির খবরে আপনি মেসেজে না লিখে একটা ফোন করলেন। এরপর সেই ব্যক্তিকেই জিজ্ঞেস করুন। মনের দিক থেকে খুব খুশি হবেন উনি।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *