এবার ভিয়েতনামে করোনার হাইব্রিড ধরন শনাক্ত

আন্তর্জাতিক

ডেস্ক রিপোর্ট: এমনিতেই দীর্ঘদিন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে দিশেহারা গোটা বিশ্ব। এরই মধ্যে এই ভাইরাসের ছোবলে প্রাণ গেছে ৩৫ লাখ ৪৮ হাজার ৯ শতাধিক মানুষের। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছে ১৭ কোটি ৬ লাখ ৪০ হাজারের বেশি মানুষ।

টিকা আবিষ্কারের পরও এই ভাইরাসের তাণ্ডব থামানো যাচ্ছে না বিশ্বজুড়ে। কেননা, প্রতিনিয়ত খোলস পাল্টাচ্ছে করোনা। এর মধ্যে ভারতীয় স্ট্রেইন ও ব্রিটিশ স্ট্রেইনের মিশ্রণে হাইব্রিড ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হল ভিয়েতনামে।

দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী নুয়েন থান লং শনিবার জানিয়েছেন, নতুন মিশ্রণ ভ্যারিয়েন্টটি বাতাসে ভেসে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে সক্ষম। অন্য ভ্যারিয়েন্টগুলোর থেকে অনেক বেশি সংক্রামক। খবর বিবিসির।

প্রথম থেকেই সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রেখেছিল ভিয়েতনাম। এ পর্যন্ত মোট সংক্রমণ মাত্র ৬ হাজার ৩৯৬। মোট মারা গেছে মাত্র ৪৭ জন। কিন্তু এ বছরের এপ্রিল থেকে ছবিটা ভিন্ন। দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে সংক্রমণ।

ছোট্ট দেশটিতে মোট সংক্রমণের অর্ধেকের বেশি (৩৬০০ জন) হয়েছে এপ্রিল মাসে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী নুয়েন বলেন, আমরা জিন সিকোয়েন্সিং করছিলাম। তাতে এক করোনা রোগীর দেহে এমন একটি স্ট্রেন মিলেছে, যেটি ভারতীয় ও ব্রিটেন স্ট্রেইনের মিশ্রণ।

আরও ভেঙে বললে, এটি আসলে ছিল ব্রিটিশ স্ট্রেইন। তার সঙ্গে মিশেছে ভারতীয় স্ট্রেইন। ভিয়েতনামের একটি দৈনিকে প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে— খুব শিগগির আনুষ্ঠানিকভাবে স্ট্রেইনটির বিষয়ে ঘোষণা দেবে সরকার।

এ পর্যন্ত সাতটি স্ট্রেইন চিহ্নিত হয়েছে ভিয়েতনামে। বি.১.২২২, বি.১.৬১৯, ডি৬১৪জি, বি.১.১.৭ (ব্রিটিশ স্ট্রেইন), বি.১.৩৫১, এ.২৩.১ এবং বি.১.৬১৭.২ (ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট)।

নতুন মিশ্র ভ্যারিয়েন্ট সম্পর্কে এ পর্যন্ত যা জানা গেছে— অন্য স্ট্রেইনগুলোর থেকে অনেক বেশি সংক্রামক। খুব তাড়াতাড়ি প্রতিলিপি (রেপ্লিকেটেড) গঠন করতে পারে এটি। নুয়েন বলেন, এই কারণে ভিয়েতনামের বিভিন্ন অংশে অল্প সময়ের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে এটি।

ভাইরাসের এহেন ভয়াবহ মিউটেশন, নতুন নতুন স্ট্রেইন তৈরি ও সংক্রমণ ক্ষমতা বৃদ্ধির মুখে একমাত্র আশা টিকাদান। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা পরের ঢেউয়ে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হবে শিশুরা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *