ওয়ার্ড সদস্য পদে লড়তে প্রস্তুতি নিচ্ছে রিকশা মিস্ত্রি ফুলমিয়া

সারাবাংলা

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার বাসিন্দা ফিরোজ কবির ফুলমিয়া। পেশায় একজন ভ্যান-রিকশা মিস্ত্রি। এ পেশার আয় দিয়ে পরিবারের চাহিদা মেটান তিনি। এর পাশাপাশি জনকল্যাণকর কাজ অব্যাহত রেখে ইতোমধ্যে মানবতার ফেরিওয়ালার পরিচয় বহন করে চলেছে ফুলমিয়া।

বুধবার সকালে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের মিরপুর বাজারস্থ ভ্যান-রিকশার মেরামত করতে দেখা যায় ফুলমিয়াকে। এসময় কিছু সংখ্যক দরিদ্র মানুষকে আর্থিক সহযোগিতাও করছিলেন তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাদুল্লাপুর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সাবেক তাজপুর গ্রামের মৃত ময়নুল হকের ছেলে ফিরোজ কবির ফুলমিয়া। এছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাবেক ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম তার। কিশোর বয়স থেকে সামাজসেবা মূলক কাজ করার স্বপ্ন দেখছিলেন। নিজে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পাশাপাশি কল্যাণমূলক কাজ করবেন, এমনি স্বপ্ন তার। তবে নানা কারণে লেখাপাড়ায় বেশি দূর এগুতো পারেনি। মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষা জীবনের ইতি টানতে হয়েছে তাকে। তবে মনোবল হারায়নি কখনো। নিজের ইচ্ছেশক্তি ও দৃঢ় মনোবল নিয়ে শুরু করে ভ্যান-রিকশার যন্ত্রাংশ বিক্রি ও মেরামতের কাজ। ধীরে ধীরে পেশার আয় দিয়ে অনেকটাই স্বাবলম্বি হয়েছেন তিনি। এরই পাশাপাশি মানবকল্যাণকর কাজের মধ্য দিয়ে নিজেকে সর্বদা নিয়োজিত রেখে চলেছেন। ইতোমধ্যে নিজ অর্থায়নে গ্রামীন মাটির রাস্তা মেরামত, পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা, মসজিদ-মন্দির ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সহযোগি অব্যাহত রাখছেন ফুলমিয়া। শুধু তায় নয়, ছিন্নমূল পরিবারের চিকিৎসা ও কন্যাদায়ে সহযোগিতা করাসহ অন্ন-বস্ত্রও প্রদান করে চলেছেন।

মানবীয় এই ফুলমিয়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে এমন দৃষ্টান্ত অর্জন করায় সম্প্রতি এলাকায় জনপ্রিয়তা বাড়ছে অনেকটাই। ওইসব প্রি মানুষদের এখন একটাই দাবি, জনপ্রতিনিধি হিসেবে দেখতে চাই ফুলমিয়াকে। এলাকার মানুষদের এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে ফরিদপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড থেকে সদস্য পদে অংশগ্রহনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে তিনি। তাকে নির্বাচিত করতে পারলে ওয়ার্ডবাসী আরো উপকৃত হবেন বলে এমনটি জানিয়েছে এলাকাবাসী। স্থানীয় বাসিন্দা এনামুল হক জানান, সাবেক তাজপুর থেকে মন্ডপের তল পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার মাটির রাস্তা চলাচলের অনুপযোগি হয়। এতে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছিল শতশত মানুষ। এ দুর্ভোগ নিরশসনে ফুলমিয়া তার নিজের টাকায় রাস্তাটি সংস্কার করেছেন। এছাড়া আরও কয়েক কিলোমিটার কাঁচা সড়ক মেরামত করেছে। সাবেক তাজপুর পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের মসজিদ নির্মাণ কল্পে সহযোগিতা করে চলেছেন সেই মানবতার ফেরিওয়া ফুলমিয়া। শুধু এ মসজিদে নয় এলাকার বিভিন্ন মসজিদে তার অবদান রয়েছে। এসব বিষয়ে ফিরোজ কবির ফুলমিয়া বলেন, সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের পাশে দাঁড়াতে পারলে নিজেকে অনেকটাই ধন্য মনে করি। সেই সঙ্গে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে সদস্য পদে নির্বাচিত হতে পারলে এর সুফল গ্রহন করবেন এলাকার জনগণ।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *