কাউনিয়ায় পাটের দাম কম ॥ কৃষক খুশি পাট কাঠিতে

সারাবাংলা

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, রংপুর থেকে
রংপুরের কাউনিয়ায় চলতি মৌসুমে হঠাৎ করেই পাটের দাম মনে ১ হাজার টাকা কমলেও পাট কাঠির দাম পেয়ে চাষীরা বেশ খুশি। কৃষকরা বলছেন গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে পাটের দাম মন প্রতি ১ হাজার টাকা কমায় তাদের মনে অনেকটা কষ্ট থাকলেও পাট কাঠির দাম বেশী পাওয়ায় তারা খুশী। আগামী মৌসুমে পাট চাষ দিগুণ হবে বলে ধারণা করছে কৃষি বিভাগ। সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে চাষীরা আরো বেশি দাম পাওয়ার আশায় পাট খড়ি যত্ন সহকারে সংরক্ষণ করছে। কোন কোন কৃষক মাচা পেতে কেউ বিশেষ ব্যবস্থায় স্তুপ করে পলিথিন মুড়িয়ে ঢেকে রাখছে। বর্তমানে এক বোঝা (আটি) ৩০ থেকে ৩৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তারা বলছেন এক দোন (২৪) শতক জমির পাট কাঠি বিক্রিী হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। বিগত বছর গুলোতে এক বোঝা (আটি) ১০ টাকা দরে বিক্রি হতো। নাজিরদহ গ্রামের পাট চাষী আবু তাহের মিয়া বলেন পাট ধুতে কামলারা এবার টাকার পরিবর্তে পাট খড়ির আটি নিয়েছে। তারা আটি ধুয়ে কৃষককে পাট বুঝে দিয়ে পাট খড়ি নিয়ে গেছে। পাট খড়ি দিয়ে পারটেক্স তৈরি ও চুলা ধরানোর জন্য ব্যাপক চাহিদা থাকায় দিন পাট খড়ির দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। গ্রামের বধূঁরা পাট খড়িতে গোবর দিয়ে শলাকা- লাকড়ি তৈরি করে নিজেদের জ্বালানি চাহিদা মিটিয়ে দেদারছে বাজারে বিক্রিও করছে। গ্রামের চাহিদা মিটিয়ে পাট খড়ি যাচ্ছে শহর -বন্দর শিল্প- কারখানাতে। তাই দিন দিন পাটের পাশাপাশি পাট খড়ির চাহিদা ব্যাপক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলার পাট ব্যবসায়ী জামাল উদ্দিন জানান হঠাৎ করেই পাটের মোকামে পাটের দর কমে গেছে তাতে আমার ব্যবসায়ীরা যেমন আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছি তেমনী পাট চাষীরাও পাটের দামে ক্ষতির শিকার হয়েছে। কারন হিসেবে তিনি জানান অনেক গুলো পাটকল বন্ধ হওয়ায় পাটরে চাহিদা কমে গেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহনাজ পারভীন জানান চলতি মৌসুমে উপজেলায় পাট চাষের লক্ষ্য মাত্রা ধরা হয়েছিল ৪ হাজার ৫শ হেক্টর চাষাবাদ হয়েছে ৪ হাজার ৬শ হেক্টর জমিতে। তিনি জানান আমদানী বেশী হওয়ায় দাম কমেছে। মৌসুমের প্রথম দিকে পাটের দাম বেশি হওয়ায় চাষীরাও চাষীরা খুশি হলেও হঠাৎ করেই পাটের দাম ৩ হাজার ৫শ থেকে নেমে ২ হাজার ৫শ হওয়ায় চাষিরা হতাশ হয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *