কাজলদিঘী ইউনিয়নে আবারও চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী

সারাবাংলা

সেলিম সোহাগ, পঞ্চগড় থেকে : পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়নের উন্নয়নের জোয়ার বয়েছে। রাস্তা-ঘাট, বিদ্যুৎ, পুল, দুস্থদের মধ্যে ভিজিট কার্ড দেওয়া হয়েছে ১৯০০। মাতৃত্ব কাড ৪০০, প্রতিবন্ধী কার্ড ৪৫০, শৌচাগার ১০০০। করতোয়া নদীর জল খাওয়ার উপযোগী না হওয়ায় জনগণের সুবিধার্থে ৯০০ নলকূপ বিতরণ করেন। করোনার ছোবলে সাধারণ মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারে না। তখন ৫০০ প্যাকেট খাদ্যদ্রব্য বাড়ি বাড়ি গ্রাম পুলিশ দিয়ে পাঠিয়ে দেন। প্যাকেটের মধ্যে ছিল ৫ কেজি চাল, ৩ কেজি আলু, ১ কেজি মুশারীর ডাল, ১ লিটার সোয়াবিন তেল, ১টি করে গোসল করা সাবান এবং কাপড় কাচা সাবান ও একটি হ্যান্ড স্যানেটাইজার, শুকনা খাবার চিড়া, মুড়ি বিতরণ করেন।

পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার ৪নং কাজলদিঘী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আলা উদ্দীন আলাল আবারও চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। তিনি বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। পরপর তিনি তিন বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি বলেন চেয়ারম্যানের সরকারি ভাতার টাকা গরীব, দুস্থ ও অসহায় মানুষদের মধ্যে বিলিয়ে দেই। আমার ইউনিয়নে সাধারণ জনগণের সাহায্য সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দেই। আমার এলাকার মানুষদের কোনো প্রকার মামলা মোকদ্দমা কোড পর্যন্ত যেতে দেই নাই। আমি কৌশল অবলম্বন করে ইউনিয়ন পরিষদের আপোষ করি। সাধারণ জনগণের কাছে আমার ওয়াদা এবার চেয়ারম্যান হতে পারলে শতভাগ রাস্তা চলাচলের উপযোগী করে দেবো। কোনো গরীব অসহায় মানুষকে কোনো ভাতার কার্ডের জন্য চেয়ারম্যান-ইউপি সদস্যদের বাড়ি বাড়ি ঘুরতে হবে না। আমি নিজেই সরজমিন তদন্ত করে ভাতার কার্ড দেওয়ার ব্যবস্থা করবো। আমি আমার ইউনিয়নের ইউপি সব সদস্যকে নিয়ে মিটিং করে বলেছি কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ ঘুষ, দুর্নীতি, মাদক মুক্ত করবো। বাংলাদেশ সরকার ক্ষুধা মুক্ত সোনার বাংলা গড়েছে আমরাও কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়নবাসী সোনার বাংলা গড়তে পারবো না কেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *