কাবুল বিমানবন্দরে ফের হামলার শঙ্কা

আন্তর্জাতিক

ডেস্ক রিপোর্ট : যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশ আবারও আফগানিস্তানের কাবুল বিমানবন্দরে হামলার শঙ্কা প্রকাশ করেছে। একইসঙ্গে নাগরিকদের সতর্ক করেছে তারা। দ্রুত তাদেরকে বিমানবন্দর এলাকা ছাড়ার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। খবর বিবিসির।

১৫ আগস্ট তালেবান কাবুল দখলে নেওয়ার পর হাজার হাজার আফগান ভিড় করছে কাবুল বিমানবন্দরে। বিভিন্ন দেশের দূতাবাসকর্মীসহ নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়া হচ্ছে সেখান থেকে। আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে লোকজনকে সরিয়ে নিতে কাজ করছে বিভিন্ন দেশ। এ পর্যন্ত ৮২ হাজার লোকককে কাবুল থেকে সরানো হয়েছে। এখনও হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষা করছে বিমানবন্দর গেটে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিনকেন বলেছেন, তালেবান ৩১ আগস্টের পর সময়সীমা বাড়ানোর বিরোধীতা করছে যদিও তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।

বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেরিস পেইন বলেন, সেখানে অনরবত বড় ধরনের সন্ত্রাসী হামলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।
যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট নাগরিকদের দ্রুত বিমানবন্দর গেট ছাড়ার নির্দেশনা দেওয়ার পরপরই তিনি এ মন্তব্য করেন।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তান তালেবানের শাসনে ছিল। এর মধ্যে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আল-কায়েদার নেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়ার অভিযোগে ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা জোট সেখানে যৌথ অভিযান চালায়, যার মাধ্যমে তালেবান শাসনের অবসান ঘটে।

অভিযানে আল-কায়েদার শীর্ষ নেতাদের দমন করা হলেও ‘শান্তিরক্ষার স্বার্থে’ সেখানে ঘাঁটি গেড়ে অবস্থান করছিল পশ্চিমা সেনারা। কিছু বছর পার হওয়ার পর সেখান থেকে ধাপে ধাপে যুক্তরাষ্ট্র বাদে অন্য দেশের সেনাদের ফিরিয়ে নেয়া হয়। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রও তাদের সেনাদের ফিরিয়ে নিতে শুরু করলে প্রত্যন্ত এলাকা দখল করে থাকা তালেবান কাবুলের ক্ষমতার মসনদে উঠতে জোর লড়াইয়ে নামে। ধীরে ধীরে প্রান্তিক অঞ্চলগুলো নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেয় তালেবান। এরপর মাত্র ১০ দিনের মাথায় কাবুল দখল করে নেয় তারা। এরপর ২০ বছরের আফগানযুদ্ধের সমাপ্তি ঘোষণা করে তারা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *