কিশোরগঞ্জে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে পালন

সারাবাংলা

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি:
কিশোরগঞ্জে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে জীবন উৎসর্গকারী নিহত পুলিশ সদস্যদের স্মরণে কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশের উদ্যোগে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে পালিত হয়েছে। সোমবার সকালে পুলিশ লাইন্সের ড্রীল সেডে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সকালে পুলিশ লাইন্সে অস্থায়ী শহীদ বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন করেন পুলিশ সুপার।
পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. কামরুল আহসান শাহজাহান, জিপি বিজয় শংকর রায়, পিপি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি শাহ আজিজুল হক। আলোচনায় সভা সঞ্চালনা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মিজানুর রহমান। এসময় বক্তব্য দেন পিবিআই পুলিশ সুপার শাহাদাত হোসেন, সাইফুল হক মোল্লা দুলু এবং নিহত পুলিশ পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন এ.এস.আই আলমগীর হোসেনের পুত্র নাসির উদ্দিন ও পুলিশ সদস্য তোফাজ্জল হোসেনের পিতা নূরুল ইসলাম। পরে নিহত পুলিশ সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং অতিথিবৃন্দ নিহত পুলিশ পরিবারের সদস্যগণকে ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী দেওয়া হয়।
এসময় পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, ক্ষুদ্র পুলিশের ব্যাথা বুঝেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সময় প্রথম গুলি পুলিশ খেয়েছিল। তা হয়তোবা কেউ জানে না। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে সোয়া দুই লাখ পুলিশের জন্য। পুলিশকে কখনও ডুবুরি, চালক, লাশবহনকারী কখনও বা সাধারণ মানুষের সাথে চলতে হয়। অনেকগুলি গুণাবলী ধারণ করে একজন পুলিশ। রাষ্ট্র এবং পুলিশ একে অপরের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। একটি ছাড়া আরেকটি সম্পূর্ণ নয়। উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত করতে সারথী হিসেবে কাজ করেছে পুলিশ। মাশরুকুর রহমান খালেদ আরও বলেন, কর্তব্যরত অবস্থায় জীবন উৎসর্গকারী পরিবারের কেউ যদি কোন ধরণের সমস্যায় পড়েন তাহলে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। কেউ আপনাদের পাশে না থাকুক আমরা আপনাদের পাশে আছি এবং থাকবো।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *