কৃষকের স্বপ্ন ধূলিসাৎ

সারাবাংলা

ইসমাইল খন্দকার, সিরাজদিখান থেকে
মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে হঠাৎ বর্ষার পানি বৃদ্ধিতে আগাম সবজি এখন পানির নিচে ডুবে গেছে। এমনিতেই বর্ষা মৌসুমে সবজির ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার পর কৃষক বর্ষার পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে আগাম শাক-সবজি লালশাক, পালংশাক, পুঁইশাক, মরিচ, ফুলকপি, লাউশাক, ডাটা, মূলা, বেগুন, মটরশুঁটির সহ বিভিন্ন শাক-সবজি চাষাবাদ শুরু করেছিল উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষকরা। হঠাৎ পানি বৃদ্ধিতে কৃষকের স্বপ্ন যেন ধূলিসাৎ হয়ে গেছে। এমনিতেই গেলো বর্ষায় লোকসান পুষিয়ে উঠতে না উঠতেই আবার নতুন করে আগাম সবজি পানির নিচে চলে গেলো কৃষকের। এ যেন মরার উপর খাড়ার ঘাঁ।
গতকাল সোমবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার লতব্দী, বালুচর, বাসাইল ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকার আগাম সবজি পানির নিচে ডুবে গেছে। তবে হঠাৎ পানি বৃদ্ধিতে এখন কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এর উপর আবার বৃষ্টি।
লতব্দী ইউনিয়নের কয়রাখোলা গ্রামের নুরুজ্জামান বলেন, বর্ষা মৌসুমের শুরুতে আমার ১০ পাখি (বিঘা) রোপা আমন ধান পানির নিচে তলিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এখন বর্ষার পানি চলে যাওয়ার পর আমি ৩ পাখি জমিতে সবজি আবাদ শুরু করেছিলাম। এখন হঠাৎ পানি বৃদ্ধিতে তা সব নষ্ট হয়ে গেছে। তিন পাখি জমিতে আমার ক্ষতি হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। আর ধানের ক্ষতি হয়েছিলো ৭০ হাজার টাকা। নয়াগাঁও গ্রামের মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ বছরের শেষের দিকে হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে আগাম এক বিঘা জমির ডাটা ও মূলা পানির নিচে তলিয়ে গেছে এবং বর্ষা মৌসুমে দুই বিঘা ধান পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শাফিয়ার রহমান বলেন, আমরা বর্ষা মৌসুমে একবার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করেছিলাম। তবে হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে পুনরায় ক্ষতি নিরূপণ করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *