কোটালীপাডায় কষ্টি পাথরসহ আটক ৬

সারাবাংলা

কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি:
গোপালগঞ্জে মূল্যবান কষ্টি পাথরসহ চোরাকারাবরী ও দালাল চক্রের ৬ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব। র‌্যাব-৮ মাদারীপুর কোম্পানীর একটি বিশেষ আভিযানিক দল কোটালীপাড়া উপজেলার কলাবাড়ি গ্রামের চোরা কারবাবারী পিযুষ বাড়ৈর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ৪ কেজি ৭৮০ গ্রাম ওজনের একটি কষ্টি পাথর সহ ৬ জনকে আটক করে। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা কষ্টি পাথর ক্রয় বিক্রয় কাজে ব্যবহৃত ৮টি মোবাইল, ১০টি সীমকার্ড ও ক্রয় বিক্রয়ের নগদ ৩৮ হাজার টাকা জব্দ করে। কোম্পানী অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লীডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলামের নেতৃত্বে গত বুধবার সন্ধ্যায় র‌্যাব সদস্যরা তাদের আটক করেন। আটককৃতরা হচ্ছেÑ গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার কলাবাড়ি গ্রামের প্রেম চাঁদ বাড়ৈর ছেলে পিযুষ বাড়ৈ (৫০), একই উপজেলার উনশিয়া গ্রামের গৌরাঙ্গ কর্মকারের ছেলে গোবিন্দ কর্মকার (২৭), বুরুয়া গ্রামের অমল গাইনের ছেলে মহাদেব গাইন (২৪), মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার আমগ্রামের মৃত দেবেন্দ্র নাথ মোড়লের ছেলে প্রশান্ত কুমার মোড়ল ওরফে কির্ত্তনীয়া (৬০), একই গ্রামের গৌরাঙ্গ বালার ছেলে কাশী বালা (৩৭) এবং মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার কোলচরী স্বস্থাল গ্রামের মৃত মোমিন উদ্দিন মোল্লার ছেলে মোঃ নান্নু মোল্লা (৪৫)। কোম্পানী অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লীডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানান, মূল্যবান কষ্টি পাথর ক্রয় বিক্রয়ের সময় হাতে নাতে ওই ৬ চোরাকারবারীকে আটক করা হয়। এসময় আটকৃতদের কাছ থেকে ৪ কেজি ৭৮০ গ্রাম ওজনের ১টি কষ্টি পাথর, কষ্টি পাথর ক্রয় বিক্রয় কাজে ব্যবহৃত ৮টি মোবাইল সেট, ১০টি সীমকার্ড ও ক্রয় বিক্রয়ের নগদ ৩৮ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।
আটক আসামিরা চোরাকারবারী, দালাল, ঠক, প্রতারক, বাটপার ও ধূর্ত প্রকৃতির বলে কলাবাড়ি গ্রামবাসী র‌্যাবকে জানিয়েছে। আটক আসামীরা জিজ্ঞাসাবাদে দেশের মূল্যবান কষ্টি পাথর চোরাচালানের উদ্দেশ্যে দেশের বাইরে পাচারে লিপ্ত রয়েছে। তারা দেশের বিভিন্ন স্থানের সাধারণ মানুষকে চাকরি, বদলী, ব্যবসা ও ঠিকাদারী পাইয়ে দেয়ার কথা বলে লক্ষ লক্ষ টাকা আÍসাৎ করে আসছে বলে স্বীকার করেছে। এছাড়া তারা ঠক ও প্রতারণার কাজে জড়িত রয়েছে বলেও র‌্যাবকে জানিয়েছে। ওই কর্মকর্তা আরও জানান, বৃহস্পতিবার আটক ৬ চোরাকরবারীদের জব্দকৃত মূল্যবান কষ্টি পাথর ও অন্য আলামতসহ গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *