কোভিড-১৯ এর প্রেক্ষিতে মে দিবস

মতামত

রতিবছর মে দিবস এলেই শ্রমজীবী মানুষের অধিকার, তাদের বঞ্চনা, চ্যালেঞ্জ ইত্যাদি বিষয়গুলো উঠে আসে আলোচনায়। অতীতের অবস্থা থেকে কতটুকু অগ্রগতি হলো সে বিষয়গুলোও আলোচনায় আসে বৈকি। নানা ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিকদের সাধারণ দাবি এবং বিশেষ খাতের অবস্থার দাবি নিয়ে আলোচনা হয়।

সেসব আলোচনায় শ্রমিকদের মজুরি, কাজের পরিবেশ সার্বিকভাবে তাদের জীবন মান ইত্যাদি বিষয়গুলো বেশি প্রাধান্য পায়। গতবছর কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর এক বছরে আবার স্পষ্টভাবেই অনুভূত হয়েছে যেকোনো দুর্যোগে শ্রমিকরা কত অসহায় হয়ে পড়েন।

স্পষ্টভাবে চোখে পড়েছে কতভাবে তারা বঞ্চনার শিকার হন, আর তাদের আর্থিক অবস্থান কতটা নড়বড়ে। এই সময় ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বাভাবিক গতি ছিল না। যে সকল শিল্প-কারখানায় ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বাভাবিক গতি ব্যাহত হয়েছে, সেখানকার শ্রমিকরা নানা বঞ্চনার কঠিন রূপ দেখতে পেয়েছেন।

অনেক কারখানা বন্ধ থেকেছে, আবার অনেক কারখানা পুরোপুরি বন্ধ করে দিতে হয়েছে। ফলে চাকরি হারিয়েছেন বহু শ্রমিক। ব্যবসা বন্ধের কারণে চাকরিচ্যুতি, ব্যবসার আকৃতি কমানোর কারণে শ্রমিক ছাঁটাই প্রভৃতি ক্ষেত্রে সঠিকভাবে আইন মানেননি অনেক মালিক।

শ্রমিকরা কাজ হারানোর সময় তাদের প্রাপ্য ঠিকমতো পাননি। তাই কোভিড-১৯ এর প্রেক্ষিতে মে দিবসের চিন্তা ভাবনায় শ্রমিকের চাকরির স্থায়িত্ব এবং দুর্যোগে চাকরি হারানো শ্রমিকের কাজের বন্দোবস্ত করার বিষয়টি গুরুত্ব পাচ্ছে।

গতবছর কোভিড-১৯ সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে বৃহৎ রপ্তানি খাত তৈরি পোশাকের কিছু কারখানা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে, আবার অনেকে সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছিলেন, পরে খুলেছেন। পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর চাকরিচ্যুত শ্রমিকরা কেউ কেউ তাদের পাওনা ঠিকমতো পেয়েছেন, আবার অনেকেই তা পাননি।

যে সব কারখানা সাময়িকভাবে বন্ধ হয়েছিল সেখানে শ্রমিকের পরিবর্তন ঘটেছে। অনেক পুরনো শ্রমিককে আর কাজে নেওয়া হয়নি। সে জায়গায় নতুন শ্রমিক নেওয়া হয়েছে। পুরনো শ্রমিকদের উৎপাদনশীলতা কম বলে ধরা হয়, তাছাড়া দীর্ঘদিন কাজ করার কারণে তাদের প্রাপ্য মূল বেতনের পরিমাণ বেশি। তাদের জায়গায় তুলনামূলকভাবে কম বয়সের শ্রমিক নিলে বেশি উৎপাদন পাওয়া যাবে, আর তারা নতুনভাবে কাজ শুরু করায় কম বেতন দিয়ে শুরু করা যাবে। সে কারণে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুরনো শ্রমিকদের বাদ দিয়ে নতুনদের নেওয়া হয়েছে।

যেহেতু বন্ধ হয়ে যাওয়া কারখানার অনেক তরুণ শ্রমিক চাকরি খুঁজছিলেন, তাই চালু করা ফ্যাক্টরিতে নতুন শ্রমিক পেতে অসুবিধা হয়নি। কিন্তু এর ফলে কাজ হারিয়েছেন অনেক পুরনো শ্রমিক। আবার অনেক পুরনো শ্রমিক যাদের বয়স ৪০ বছর বা তার বেশি তারা পড়েছেন বিপাকে। কারণ এই বয়সের শ্রমিকদের নতুন করে তৈরি পোশাক কারখানায় বা অন্য কারখানায় চাকরি পাওয়া বেশ মুশকিল। অথচ তাদের ছেলেমেয়েরা এই চাকরির আয়ের উপর নির্ভরশীল।

এবার মে দিবসের প্রতিপাদ্য হওয়া দরকার এরূপ তুলনামূলকভাবে বয়সী শ্রমিকদের পুনরায় চাকরি প্রাপ্তি এবং তাদের জীবন যাপনে সহায়তার পরিকল্পনা ও উদ্যোগ জরুরি।
করোনায় যখনই লকডাউন হয়েছে, কলকারখানা বন্ধ থেকেছে তখনই শ্রমিকদের মনে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে তারা ঠিকমতো বেতন-ভাতা পাবেন কিনা। এবছরও যেহেতু করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলছে, শ্রমিকদের মনে ইতোমধ্যেই আশঙ্কার সূত্রপাত হয়েছে যে তারা ঠিকমতো বেতন-ঈদের বোনাস পাবেন কিনা।

স্বল্পআয়ের এই মানুষগুলো যাতে তাদের প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত না হয়, শ্রম আইনের ব্যত্যয় যাতে না ঘটে সেজন্য কলকারখানার পরিদর্শন ও শ্রম অধিকার মনিটরিং এর ব্যাপারে দায়িত্বপ্রাপ্ত দপ্তরগুলোর এখনই সক্রিয় হওয়া দরকার।

অনানুষ্ঠানিক খাতের নানা উদ্যোগে শ্রমিক হিসেবে যারা কাজ করেন তাদের অধিকারের বিষয়টি আইন দিয়ে নিশ্চিত করা সম্ভব নয় বরং তা অনেকাংশেই নির্ভর করে মালিকের কর্মপরিকল্পনা ও ইচ্ছার উপরে। যেহেতু অনানুষ্ঠানিক খাতের ব্যবসা-বাণিজ্য বেশ সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এই খাতে কর্মরত শ্রমিকরা অনেকেই হয়তো ঠিকমত তাদের বেতন পাবেন না।

তাই অনানুষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তাদের জন্য সাহায্য সহযোগিতার উদ্যোগ নেওয়া দরকার। বিভিন্ন আনুষ্ঠানিক খাতের কলকারখানার অর্থে প্রতিষ্ঠিত শ্রমিক কল্যাণ ফান্ড-এর একটি অংশ অনানুষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় করার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করা যেতে পারে।

বহুদিন ধরেই বিভিন্ন মহলে আলোচিত হয়ে আসছে যে, স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য বেকার ভাতা এবং সেইসাথে একটি সর্বজনীন পেনশন স্কিম এদেশে দরকার, যা মানুষের জীবনযাত্রার মান নিশ্চিত করতে পারে। এবারের করোনায় দুর্যোগ বীমা, বেকারত্ব ভাতা অথবা সর্বজনীন পেনশন ইত্যাদি বিষয়গুলোর গুরুত্ব আরও বেশি অনুভূত হচ্ছে।

এক্ষেত্রে শ্রমিক-মালিক সরকারের অংশগ্রহণমূলক ফান্ড গড়ে তোলার বিষয়টি বহুদিন ধরেই আলোচিত হচ্ছে। সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতেও একটি ইনস্যুরেন্স স্কিম গড়ে তোলা এবং সর্বজনীন পেনশনের বিষয়টি গুরুত্ব পেয়েছে।

অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাতেও এ বিষয়টি সামাজিক সুরক্ষার একটি গুরুত্বপূর্ণ অভিপ্রায় হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। কিন্তু এ ব্যাপারে অগ্রগতি খুব ধীর।‌ এর প্রেক্ষিতে এবার মে দিবসে এই বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আলোচিত হওয়া দরকার। যাতে আগামীতে শ্রমিকরা হঠাৎ করে চাকরি হারালে বড় বিপর্যয়ে না পড়েন, তাৎক্ষণিক জীবন চালানোর মতো ব্যবস্থা যেন তাদের থাকে।

বাংলাদেশের শ্রম আইন যথেষ্ট ভালো। কিন্তু তার প্রয়োগের নানান সীমাবদ্ধতা ও ব্যত্যয় রয়েছে ব্যাপকভাবে। মে দিবস কেবল একটি দিন নয় বরং এই দিবসটি সারা বছর ধরে শ্রমিকদের ভালো-মন্দ, সুখ-দুঃখ, অধিকার-বঞ্চনা যেভাবে চলে তা পর্যালোচনার দিবস। কিন্তু সেই পর্যালোচনার ফলশ্রুতিতে শ্রমিকদের অবস্থান ও জীবন মান যাতে আরও ভালো হয় তাই হচ্ছে এই দিবসের মূল লক্ষ্য।

এই মহা দুর্যোগে শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় সকল মালিকের সচেষ্ট হওয়া দরকার। সরকারের পক্ষ থেকেও দরকার তদারকি। তবেই কেবল একটি সুষম উন্নয়নের দেশ হিসেবে অগ্রগতি হবে আমাদের। এই শ্রমিকদের শ্রমে চলছে দেশের অর্থনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্য বিষয়টি ভুলে গেলে চলবে না। এবারের মে দিবস হোক শ্রমিকদের জন্য দুর্যোগে পাশে থাকার অঙ্গীকারের দিবস।

লেখক: ড. নাজনীন আহমেদ, সিনিয়র রিসার্চ ফেলো, বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ (বিআইডিএস)।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *