ক্যাপিটলে দাঙ্গা তদন্তে ট্রাম্পকে তথ্য দিতে হবে: বাইডেন

আন্তর্জাতিক

ডেস্ক রিপোর্ট: গত ৬ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট ভবন ক্যাপিটলে ঘটে যাওয়া দাঙ্গার তদন্তে তথ্য দিয়ে অবশ্যই সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সহযোগিতা করতে হবে নির্দেশ দিয়েছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

বাইডেন শুক্রবার এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছেন। খবর বিবিসির।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানে সাবেক প্রেসিডেন্টদের সহযোগী ও প্রশাসন বিষয়ক কিছু তথ্য গোপন রাখার সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

এ ধরনের বিধান থাকার কারণে ইতোমধ্যে ট্রাম্পের অন্যতম সহযোগী স্টিভ ব্যানন দাঙ্গার তদন্তকারীদের সহযোগিতা করতে গড়িমসি করছেন।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে তলব করেছিলেন তদন্ত কর্মকর্তারা, কিন্তু তাতে সাড়া দেননি তিনি।

এ ঘটনার জেরই বাইডেন প্রশাসন শুক্রবার জানিয়েছে, ক্যাপিটল দাঙ্গা তদন্ত ইস্যুতে ট্রাম্পের ক্ষেত্রে এই সুবিধা কার্যকর হবে না।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল আর্কাইভসে একটি চিঠি গেছে হোয়াইট হাউস থেকে। তাতে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ বিষয়ে স্থির সিদ্ধান্তে এসেছেন যে, কোনো নির্বাহীর ব্যক্তিগত সুযোগ-সুবিধার চাইতে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ অনেক বড় ও গুরুত্বপূর্ণ।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেনের কাছে পরাজিত ট্রাম্প কখনও নির্বাচনের ফল মেনে নেননি। বরাবরই অভিযোগ করেছেন- নির্বাচনে কারচুপি ঘটেছে। সর্বশেষ নির্বাচন বাতিল ও পুনরায় ভোট গণনার জন্য আদালতের শরণাপন্নও হয়েছিলেন তিনি, যদিও আদালতের রায় তার বিপক্ষে গেছে।

গত ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটলে যখন যুক্তরষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী জো বাইডেনকে স্বীকৃতি প্রদানের জন্য অধিবেশন শুরু হয়েছিল, সেসময় সেখানে হামলা করেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের কয়েক শ’ উন্মত্ত সমর্থক। সেই হামলায় পুলিশসহ নিহত হয়েছিলেন অন্তত ১৩ জন।

এ ঘটনার তদন্তে গঠিত কংগ্রেস কমিটি ওই দিনের ঘটনা সম্পর্কিত কিছু রেকর্ড চেয়েছিল ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে।

কমিটির চাওয়া রেকর্ডগুলোর মধ্যে ট্রাম্পের পরিবারের সদস্য, শীর্ষ সহযোগী, তার আইনজীবী ও তার প্রশাসনের সাবেক সদস্যদের তথ্যও অন্তর্ভূক্ত ছিল।

কিন্তু তদন্ত কমিটিকে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের সাংবিধানিক সুযোগের বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন- দেশের সাবেক প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি এসব তথ্য প্রদানে বাধ্য নন।

তদন্তকারী দলের সদস্যরা বলছেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়েই তদন্তে সহযোগিতা করতে গড়িমসি করছেন ব্যানন।

এদিকে, আগামী ২০২২ সালের নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের নির্বাচন হবে।

ব্যানন হয়তো ভাবছেন- আগামী নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থীরা জয়ী হবে। এ কারণেই অসহযোগিতা করছেন তিনি।

তদন্ত দলের সদস্যরা জানিয়েছেন, ক্যাপিটলে দাঙ্গার ঘটনায় ট্রাম্পের সাক্ষ্য নেওয়ার জন্য ট্রাম্পের চার সহযোগীকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। তাদেরই একজন স্টিভ ব্যানন। বাকি তিন জন হলেন- ট্রাম্পের সাবেক চিফ অব স্টাফ মার্ক মেডোস, ট্রাম্পের সাবেক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবস্থাপক ড্যান স্ক্যাভিনো এবং যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী পেন্টাগনের সাবেক চিফ অব স্টাফ ক্যাশ প্যাটেল।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *