গুরুদাসপুরে তুচ্ছ ঘটনায় স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম

সারাবাংলা

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি:
নাটোর জেলার গুরুদাসপুরে বিয়াঘাট ইউনিয়নে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম করেছেন প্রতিপক্ষ। গুরুতর আহত অবস্থায় কোহিনুর বেগম (৪৮) ও জবান আলী (৫২)কে উদ্ধার করে গুরুদাসপুর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন তার আত্মীয়রা। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের দুর্গাপুর ভিটাপাড়া গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়,  শুক্রবার সকালে জবান আলী ও তার স্ত্রী কোহিনুর বেগম তাদের জমির সামনে বাঁশ দিয়ে বেড়া দেওয়ার চেষ্টা করছিলেন । বন্যার পানির সাথে তাদের জমিতে যেন কচুরি পনা না প্রবেশ করে। যার কারনে সকালে থেকে তারা বাশ দিয়ে কচুরিপনা ঠেকানোর কাজ করছিল। এসময় পার্শবর্তী জমির মালিক নাজিম ও তার স্ত্রী সফুরা বেগম বেড়া দিতে নিষেধ করলে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা বেধে যায়। এক পর্যায়ে নাজিম উদ্দিন ও তার স্ত্রী দুজন মিলে ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কোহিনুর বেগম ও তার স্বামী জবান আলীকে কুপিয়ে জখম করেন। ঘটনার পর তার আত্বীয় স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে গুরুদাসপুর স্বাস্থ্য কমপে¬ক্স ভর্তি করেন।
গুরুদাসপুর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আরিফা আফরোজ বানু জানান, কহিনুরের অবস্থা আশংকা জনক। তার মাথায় ৬ টা সেলাই দেওয়া হয়েছে। জবানের বাম হাতে তিনটা সেলাই দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে দুজনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এঘটনায় অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করে তাদের পাওয়া যায়নি । এঘটনায় জবানের বড় মেয়ে রশনারা জানান, এ ব্যাপারে বিবাদী নাজিম উদ্দীন ও তার স্ত্রী সফুরাকে আসামী করে গুরুদাসপুর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে
গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিষয়টি নিয়ে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পাওয়া মাত্র তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *