গোদাগাড়ীতে সন্দেহভাজন আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত

সারাবাংলা

রাজশাহী ব্যুরো:
রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার কাকনহাটে শিশু ধর্ষণ মামলার সন্দেহভাজন আসামি যুবক শামীম পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। ওই যুবক রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বাউদিয়া গ্রামের মৃত শফিকের ছেলে। গতকাল শুক্রবার মধ্য রাত ২টার দিকে গোদাগাড়ী উপজেলার ললিতনগর এলাকায় পুলিশের টহল দলে সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সে নিহত হয়। তার কাছ থেকে একটি পিস্তল, এক রাউন্ড গুলি ও দুটি গুলির খোসা জব্দ করা হয়েছে। ক্রসফায়ারে নিহত যুবক শামীম এর কাছ থেকে একটি মুঠোফোন জব্দ করা হয়। যে মুঠোফোনটি ওই শিশুর বাড়ি থেকে চুরি হয়েছিল ধর্ষণের দিন রাতে। শামীম শিশু ধর্ষণ মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি। রাজশাহী জেলা পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) ইফতেখায়ের আলম জানান, মধ্য রাত ২টার দিকে গোদাগাড়ী থানা পুলিশের একটি দল উপজেলার ললিতনগর এলাকায় টহল দিচ্ছিল। এসময় দুষ্কৃতিকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও জানমাল এবং আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে শামিম নামের একজন গুলিবিদ্ধ হয় ও অন্যরা পালিয়ে যায়। পরে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। তার কাছ থেকে একটি মুঠোফোন জব্দ করা হয়। যে মুঠোফোনটি ওই শিশুর বাড়ি থেকে চুরি হয়েছিল ধর্ষণের দিন রাতে। শামীম শিশু ধর্ষণ মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি। পুলিশের ধারণা সে ওই ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ছিল। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। উল্লেখ্য, গত ১৯ জুন রাতে ৪র্থ শ্রেণীতে পড়ুয়া সুমাইয়া নামের এক শিশুকে ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়। পরে গুমের উদ্দেশ্যে লাশ চাপা দিয়ে দেওয়া হয়। গত ২০ জুন সকালে লাশ দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে লাশ উদ্ধার করে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *