চট্টগ্রাম : টার্গেট অনলাইনে মুঠোফোন বেচাকেনা জাল টাকা চালানোর নতুন ফাঁদ

সারাবাংলা

রাজীব চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম ব্যুরো :
নগরীতে জাল টাকা ব্যবহারের নতুন ফাঁদের মুখোশ উম্মোচন করেছেন সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। একটি চক্রের দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে ৩ লাখ ৩৪ হাজার টাকার জাল নোট, আটটি মুঠোফোন ও একটি ল্যাপটপ করা হয়েছে। নগরীর বন্দর এলাকা থেকে গত রোববার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত টানা অভিযানে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিএমপি’র কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার আসিফ মহিউদ্দীন। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, সম্প্রতি আমেরিকা থেকে আসা এক ব্যক্তি তার স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট-২০ আল্ট্রা মডেলের মোবাইল সেট বিক্রির জন্য ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেন। তখন ক্রেতা সেজে ফাহিম খান নামের একটি আইডি থেকে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে কথিত ফাহিম খান চন্দনপুরা এলাকায় গিয়ে ৭৮ হাজার টাকায় মোবাইলটি কিনে নেয়। পরে বিক্রেতা বুঝতে পারেন ৭৮ হাজার টাকার সব জাল নোট এবং তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন। একইভাবে গত ১৮ জুলাই নগরের হালিশহর এলাকার এক শিক্ষার্থীর ওয়ান প্লাস এইট প্রো মোবাইল নগদ ৮০ হাজার টাকার জাল নোট দিয়ে হাতিয়ে নেয় প্রতারকরা। সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগের নজরে আসলে ঘটনাগুলো তদন্ত শুরু হয়। প্রথমে মহিউদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয় তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে। এরপর তার বাসা থেকে চন্দনপুরা ও হালিশহরের ঘটনা দুটির মোবাইলগুলো জব্দ করা হয়। পাশাপাশি আরও দুটি মোবাইল ও একটি ল্যাপটপ এবং ৩৪ হাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়। এরপর মহিউদ্দিনের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে মারুফকে ধরতে সক্ষম হই আমরা। তার কাছ থেকে ৩ লাখ টাকার জাল নোট ও চারটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। বাগেরহাট থেকে জাল নোট সংগ্রহ করে প্রতারণামূলক কাজগুলো তারা করে আসছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে তারা। জাল নোট ছাপানো চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান সিএমপি’র কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগ। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে কক্সবাজারের পেকুয়ার রাজাখালীর বকশিয়া এলাকার মৃত শামসুল আলমের ছেলে মহিউদ্দিন আল আজাদ ওরফে মহিন খান (২৬) ও বাগেরহাট সদরের গুটাপাড়ার দেবপাড়া মোল্লাবাড়ির মৃত মাহবুব মোল্লার ছেলে মারুফ মোল্লাকে (২৮)।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *