চলতি বছরেই শতভাগ ভাতাভোগী মোবাইল ব্যাংকিংয়ের আওতায় আসবে : সমাজকল্যাণমন্ত্রী

জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমদ এম পি বলছেনে, করোনা মহামারীর কারনে সমাজের অনগ্রসর জনগোষ্ঠী সংকটের মধ্যে আছ। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় ভাতাভোগীরা যাতে যথাসময়ে ভাতা পায় সে জন্য জি টু পি পদ্ধতিতে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ভাতা প্রদানে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় কাজ করছে। চলতি অর্থ বছরইে শতভাগ ভাতাভোগীকে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ভাতা প্রদান করা হবে। মন্ত্রী বৃহস্পতিবার ( ২০ এপ্রিল,২০২১) সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর ২০২০-২১ অর্থ বছরে ৮৮.৫০ লক্ষ উপকারভোগীর ভাতা ‘ জিটুপি’ পদ্ধতিতে সরাসরি মোবাইল ব্যাংকিং হিসেবে প্রেরণের অগ্রগতি র্পযালোচনা সভায় অনলাইনে যুক্ত হয়ে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলনে।
সভায় সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু এমপি, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহফুজা আখতার, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রতিনিধি ও মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান নগদ ও বিকাশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাগণ যুক্ত ছিলেন।
মন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাসের ভয়াল থাবায় বিশ্ব আজ কম্পমান। বিগত বছরে করোনা মহামারীতে আমরা নাজুক হয়ে যাইনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনা ভাইরাসের প্রকোপের মধ্যেও আমাদের  দেশের অগ্রগতি ও উন্নয়ন র্কমকান্ড স্তমিত হয়নি। আমাদের অর্থনীতির চাকা সচল ছিল। প্রধানমন্ত্রী সারা বিশ্বে আলোচিত নেতৃত্ব হিসেবে প্রশংসতি হয়েছেন।
মন্ত্রী বলনে, প্রায় এক কোটি লোক বিভিন্ন ভাতার আওতায় রয়েছে। করোনা মহামারীকালীন এ সময়ে এ বিশাল সংখক ভাতাভোগীদরে মধ্যে যথাসময়ে ভাতা পৌঁছাতে হবে।  ভাতাভোগীরা যাতে কোন রকম বিড়ম্বনা ছাড়াই যথাসময়ে নগদ ও বিকাশের মাধ্যমে ভাতা পায় সেজন্য মন্ত্রী সকলকে নির্দেশনা দেন।
মন্ত্রী বলনে, করোনা মহামারী চলাকালীন সময়ে প্রায় এক কোটি ভাতাভোগীর সকল তথ্য যাচাই করে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের আওতায় আনা একটি চ্যালঞ্জে, এ চ্যালঞ্জে অতিক্রম করতে হবে।।  মন্ত্রী সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের র্কমকান্ডসমূহকে জরুরী সেবার আওতায় আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *