চৌমুহনীতে ১৪৪ ধারা জারি, র‍্যাব-পুলিশ-বিজিবি মোতায়েন

জাতীয়

ডেস্ক রিপোর্ট: কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে কোরআন অবমাননার ঘটনার জেরে নোয়াখালীতে সংঘর্ষের ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কায় প্রশাসনের জারি করা ১৪৪ ধারা চলছে।

চৌমুহনী পৌরসভা এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শনিবার (১৬ অক্টোবর) সকাল থেকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া বিজিবি ও র‍্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) সকালে দেখা যায়, ১৪৪ ধারা জারির কারণে জেলার বাণিজ্যিক শহর চৌমুহনীতে কার্যত অঘোষিত হরতাল চলছে। চৌমুহনী বাজারের বেশিরভাগ দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। বাজারে সাধারণ লোকজনের উপস্থিতি অনেক কমে গেছে। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ, র‍্যাব ও বিজিবি মোতায়েন রয়েছে।

বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামসুন নাহার বলেন, শনিবার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চৌমুহনী পৌরসভা এলাকায় জনসাধারণের জানমাল ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে ১৪৪ ধারা জারি থাকবে। এ সময়ের মধ্যে পৌর এলাকায় কোথাও কোনো ধরনের সভা-সমাবেশ বা গণজমায়েত করা যাবে না। নির্দেশ অমান্যকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ম্যাজিস্ট্রেটসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেগমগঞ্জ সার্কেল) মো. শাহ ইমরান বলেন, ১৪৪ ধারা জারির পরিপ্রেক্ষিতে আজ সকাল থেকে চৌমুহনী পৌরসভা এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর টহল রয়েছে। এ ছাড়া শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোয় পুলিশ, র‍্যাব ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এ আদেশ চলাকালে পৌর এলাকায় ব্যক্তি, সংগঠন, রাজনৈতিক দল, গণজমায়েত, সভা, সমাবেশ, মিছিল, র‌্যালি, শোভাযাত্রাসহ যেকোনো ধরনের অনুষ্ঠান এবং রাজনৈতিক প্রচার-প্রচারণা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একইসঙ্গে পৌর শহরে চারজনের বেশি লোক জমায়েত হতে পারবে না।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লার পূজামণ্ডপের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সহিংসতার জের ধরে নোয়াখালীর চৌমুহনীতে বেশ কয়েকটি মন্দিরে হামলা ও পুলিশের সঙ্গে হামলাকারীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় যতুন সাহা (৪২) নামে একজন নিহত হন। পুলিশ সদস্যসহ ১৮ জন আহত হন বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বেগমগঞ্জ সার্কেল) শাহ ইমরান।

তিনি বলেন, চৌমুহনী বিজয়া সর্বজনীন দুর্গামন্দিরের যতুন সাহা (৪২) নামে একজন মারা গেছেন। এ ছাড়া বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান শিকদারসহ ১৮ জন আহত হয়েছেন। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *