ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ : গ্রেফতার ছাত্রলীগকর্মী মাহফুজ

সারাবাংলা

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণের মামলার ৬ নং আসামি মাহফুজুর রহমান মাসুমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার রাত সাড়ে ১২টায় সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার হরিপুর এলাকায় মাহফুজের এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও কানাইঘাট থানা পুলিশ।

জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনের নির্দেশনায় গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি উত্তর) ওসি সাইফুল আলম এবং কানাইঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ শামসুদ্দোহার নেতৃত্বে জৈন্তাপুর থানার হরিপুর থেকে মাহফুজুর রহমান মাসুমকে গ্রেফতার করা হয়।

সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামি মাহফুজুর রহমান মাসুমকে মঙ্গলবার সকালে মহানগর পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর এই মামলায় এজাহারনামীয় পাঁচ আসামিসহ সাতজনকে গ্রেফতার করল সিলেট রেঞ্জ পুলিশ ও র‌্যাব-৯। মহানগর পুলিশের শাহপরান (রহ.) থানার মামলা হলেও এখন পর্যন্ত একজন আসামিকেও গ্রেফতার করতে পারেনি এসএমপি পুলিশ।

গত শুক্রবার এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হন এক গৃহবধূ। রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বামীর কাছ থেকে ওই গৃহবধূকে জোর করে তুলে নিয়ে ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় কলেজের সামনে তার স্বামীকে আটকে রাখে দুজন।

এ ঘটনায় ভিকটিমের স্বামী বাদী হয়ে শাহপরান থানায় মামলা করেছেন। মামলায় ছাত্রলীগের ছয় নেতাকর্মীসহ অজ্ঞাত আরও তিনজনকে আসামি করা হয়। অভিযুক্ত ছাত্রলীগকর্মীরা সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক রণজিৎ সরকারের অনুসারী।

এ ঘটনায় রোববার দুপুরে সিলেট মহানগর হাকিম ৩য় আদালতের হাকিম শারমিন খানম নিলার কাছে সেই রাতের ঘটনার জবানবন্দি দেন নির্যাতনের শিকার নারী। এ সময় তিনি ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেন। আদালত গৃহবধূর জবানবন্দি রেকর্ড করে তাকে পরিবারের জিম্মায় দিয়ে দেন।

এ ঘটনায় গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমান, চার নম্বর আসামি অর্জুন লস্কর ও ৫ নম্বর আসামি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এমসি কলেজ শাখার সভাপতি রবিউল হাসানকে সোমবার আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *