জর্জিয়ার বাকি দুই আসনে ভোট লড়াই আজ

আন্তর্জাতিক

অনলাইন ডেস্ক: গত ৩ নভেম্বর অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটের বাকি দুটি আসনে ভোট হবে আজ। এ নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এই দুই আসনে জয়ী হওয়ার জন্য মুখিয়ে আছেন তিনি। তবে বাইডেনও পিছিয়ে নেই। ট্রাম্প এবং বাইডেন, দু’জনই ভোটের আগে সমাবেশ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করেছেন।

মঙ্গলবার ভোটারদের নিজেদের দলে টানতে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে গেছেন এই দুই নেতা। আজকের ভোটেই ভোটাররা ঠিক করবেন যে, সিনেটের নিয়ন্ত্রণ কার হাতে যাবে। ডেমোক্র্যাট নাকি রিপাবলিকান, কারা শেষ হাসি হাসবে? এই ভোটের ফলাফল জানতে বেশ কিছুদিন সময় লেগে যেতে পারে।

ডেমোক্র্যাটরা যদি ভোটে জিতে যায় তবে কংগ্রেস এবং হোয়াইট হাউসের পুরো নিয়ন্ত্রণ তাদের হাতে চলে যাবে। কিন্তু যদি রিপাবলিকানরা জয়ী হয় তবে পরবর্তীতে ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে গিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে।

সোমবার আটলান্টায় এক সমাবেশে অংশ নিয়ে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জর্জিয়ার বাসিন্দাদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‌পুরো দেশ আপনাদের দিকে তাকিয়ে আছে। আগামী প্রশাসনের জন্য সিনেটের নিয়ন্ত্রণ গুরুত্বপূর্ণ বলে জোর দিয়েছেন তিনি। অপরদিকে, জর্জিয়ায় রিপাবলিকানদের জয়ের স্বপ্ন দেখছেন ট্রাম্প।

গত ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে ৩০৬টি ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে জয় নিশ্চিত করেন জো বাইডেন।
অপরদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প পেয়েছেন ২৩২টি ভোট।

তবে ফলাফল নিশ্চিত হওয়ার পরও নিজেকে পরাজিত মানতে নারাজ ছিলেন ট্রাম্প। এমনকি তিনি বাইডেনের জয়ী হওয়ার বিষয়টিও মেনে নিতে পারেননি।

শনিবারের ওই ফোন কল অনুযায়ী, জর্জিয়ায় নির্বাচনের ফলাফল বদলানোর চেষ্টা করেছিলেন ট্রাম্প। ওই অঙ্গরাজ্যে ট্রাম্পের চেয়ে ১১ হাজার ৭৭৯ ভোট বেশি পেয়ে জয় নিশ্চিত করেন বাইডেন। এর আগেও কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে ফলাফল বদলানোর চেষ্টা করেও তিনি সফল হননি।

তিনি ভোটের ফলাফল পাল্টে দিতে সামরিক বাহিনীকেও ব্যবহারের চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ১০ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সতর্ক করে বলেছেন, নির্বাচনে জালিয়াতির দাবি প্রমাণে সামরিক বাহিনীকে ব্যবহার করলে তার পরিণাম ভয়াবহ হবে। এই পদক্ষেপকে বেআইনি উল্লেখ করে তারা বলেন, এর ফলে যুক্তরাষ্ট্র অসাংবিধানিক ভূখণ্ডে পরিণত হবে।

ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান উভয় দলের ১০ সদস্যের স্বাক্ষরিত নিবন্ধটি সম্প্রতি ওয়াশিংটন পোস্টে প্রকাশিত হয়। আগামী ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারে ট্রাম্পের সাংবিধানিক দায়িত্ব নিয়ে নিবন্ধে প্রশ্ন তুলেছেন তারা। ট্রাম্পের নাম উল্লেখ না করে তারা বলেন, ‘ফল নিয়ে প্রশ্ন তোলার সময় শেষ, সংবিধান অনুযায়ী নিয়মমাফিকভাবে ইলেকটোরাল কলেজের ভোট গণনার সময় এসেছে।’

জর্জিয়ায় একাধিকবার অডিট ও নির্বাচনের ফলাফল পুনরায় গণনা করা হয়েছে। এরপরেও সেখানে বাইডেনই জয়ী হয়েছেন। আগামী ৬ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে সিনেটে এই ফলাফল ঘোষণা হবে। কংগ্রেসের উভয় কক্ষ এক যৌথ অধিবেশনে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের হিসাব চূড়ান্ত করবে। এরপরই আনুষ্ঠানিকভাবে দেশটির পরবর্তী প্রেসিডেন্টের নাম ঘোষণা করা হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *