শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সালথায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুনামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত পাইকগাছায় লবনপানি নিয়ত্রণ ও পরিবেশ সুরক্ষা আন্দোলনের আয়োজনে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত নবগঠিত নগর বিএনপির কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে চট্টগ্রামে আনন্দ মিছিল পুলিশ সুপারের সাথে নোয়াখালী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সৌজন্য সাক্ষাৎ দশমিনায় কৃষি ও প্রযুক্তি মেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ শ্রেষ্ঠ স্কাউট শিক্ষক শারমিন ফাতেমাকে এমটিভি পরিবারের অভিনন্দন মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে যুবকদের খেলাধুলায় এগিয়ে আসতে হবে: লাবু চৌধুরী এমপি ফেনীতে ২ কোটি ৩৬ লাখ টাকার ভারতীয় শাড়ি ও লেহেঙ্গা জব্দ নগরকান্দার যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীদের সাথে এমপি লাবু চৌধুরীর মতবিনিময় ভোগান্তির আরেক নাম পাইকগাছার সোলাদানা খেয়াঘাটঃ যুগযুগ ধরে অবহেলিত! নান্দাইলে পুলিশের অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী ও জুয়ারোসহ গ্রেফতার-১৫ চিনি বেশি খাচ্ছেন, এই সব লক্ষণই কিন্তু বলে দেবে মাদক নিয়ন্ত্রণে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাজুন্নেছা আহমেদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক তুরাগে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে তিন ডাকাত গ্রেপ্তার জনগণের কষ্টার্জিত অর্থ যথাযথভাবে ব্যয় করার ক্ষেত্রে সকলের সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত – পরিকল্পনামন্ত্রী সালথায় পাট উৎপাদনে খরচের তুলনায় বাজারে দাম কম: দুশ্চিন্তায় চাষিরা কুড়িগ্রামের আরিফুর রহমান সুমন ওয়ার্ল্ড গেমস-২০২৫ র‌্যাংকিং ৮ম এ কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানে বার্মিজ পাইথন প্রজাতির অজগর সাপ অবমুক্ত পাইকগাছা মৎস্য আড়ৎদারি সমিতির সাথে সংসদ সদস্য রশীদুজ্জামানের মতবিনিময় দশমিনায় কৃষি মেলার শুভ উদ্বোধন ও অনুদানের চেক বিতরণ সম্পন্ন নান্দাইলে ৩৮৯ বোতল ফেন্সিডিল সহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ফরিদপুর জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি সালথা থানার ফায়েজুর রহমান কাপ্তাই অনূর্ধ্ব (১৭) ফুটবল খেলায় বালক বিভাগে কাপ্তাই ও বালিকা বিভাগে রাইখালী ইউনিয়ন চ্যাম্পিয়ন পাইকগাছায় মৎস্য আড়ৎ আধুনিকায়নে বরাদ্দ প্রায় ৪ কোটি টাকা কোটা ও পেনশন আন্দোলন সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করছি : কাদের এইচএসসির আইসিটি পরীক্ষায় বহিষ্কার ৭৬, অনুপস্থিত ১২ হাজার ৮২৯ বিয়েশাদি নিয়ে ভাবছি না, কোনো রিলেশনেও নেই : দীঘি ‘১০০ ভাগ ফিট না থাকলেও মেসি খেলবে’

জামালপুরে বন্যায় অর্ধশতাধিক গ্রাম পানির নিচে জমির ফসল দিশাহারা কৃষক

ফরিদুল ইসলাম জামালপুর থেকে 
বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২২, ৬:১৫ পূর্বাহ্ন

উজানের ঢলে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আকষ্মিক বন্যায় জামালপুরে অর্ধশত গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকার জমির রোপা আমন, মরিচ ও শীতের সবজিসহ বিস্তীর্ণ এলাকার ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। হঠাৎ অকাল বন্যায় দিশাহারা হয়ে পড়েছে হাজার হাজার কৃষক।

জামালপুর সদর, মেলান্দহ, ইসলামপুর, সরিষাবাড়ি ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার অর্ধশত গ্রামের সহস্রাধিক হেক্টর জমির রোপা আমন, মরিচ, ভূট্রা, মাসকলাই, পিয়াজ, চিনাবাদাম ও শীতের সবজি ক্ষেত তলিয়ে গেছে।

জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, কয়েকদিনের টানা পানি বৃদ্ধির ফলে জেলার রোপা আমন ৭২১ হেক্টর, ভূট্টা ১৭৫ হেক্টর, মচির ১৪৩ হেক্টর, মাসকলাই ৭৭ হেক্টর, মিস্টি আলু ১৫ হেক্টর, শাকসবজি ৫৬ হেক্টর, পেঁয়াজ ১ হেক্টর ও চিনাবাদাম ০২ হেক্টরের ফসল ডুবে গেছে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানায়, যে বন্যার ভয়ে তারা ধান রোপন করতে দেরি করেছে অথচ সেই বানের পানিতেই ভেসে গেল তাদের সোনালী সবুজ ধানসহ নানা ফসল। ধান ও রবি শষ্য ডুবে যাওয়ায় তাদের খোরাকী (বছরের খাবার) থাকলো না। তাই আগামী দিনগুলোর চিন্তায় তারা উদ্বিগ্ন। তাদের কষ্টার্জিত সোনালী ধানসহ রবিশষ্য পানিতে তলিয়ে গেলেও কৃষি বিভাগের লোকজন কোন খোঁজ-খবর নিচ্ছেন না।

চর মল্লিকপুর গ্রামের কৃষক কাজী ইসমাঈল হোসেন বলেন, গত দুইদিনের পানিতে ধানখেত ও মরিচ খেত তলিয়ে গেছে। বিশেষ করে মরিচ খেতে পানি যাওয়ার সাথে সাথে মরিচের গাছগুলো মরে যাচ্ছে। খেতের আশেপাশে বাঁধ দিয়ে বন্যার পানি আটকানো যাচ্ছে না

হরিপুর গ্রামের কৃষক ইয়াকুব আলী বলেন, প্রতি শতাংশ জমিতে হাইব্রীড জাতের মরিচ চাষ করতে খরচ হয়েছে ৫শ থেকে সাড়ে ৫শ টাকা। এই মরিচ চাষ করেই তার সংসার চলে। কিন্তু এই অসময়ের বন্যায় সব ভেস্তে গেল।

চরমল্লিকপুর গ্রামের ধানী কৃষক মীর আহম্মদ বলেন, আমনের মাঝামাঝি সময়ে ধানের গোড়া পঁচা রোগসহ নানা রোগের আক্রমণ ছিল। বিভিন্ন প্রকার কিটনাশক প্রয়োগে তা কিছুটা কমে ছিল। এরমধ্যে এই অসময়ের বন্যা কৃষকের মাথায় মরার উপর খরার ঘা হয়ে নেমে এসেছে

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ জাকিয়া সুলতানা জানান, এই সময়ে সাধারণত বন্যা দেখা যায় না। কিন্তু এবার এ অসময়ের এ বন্যার জন্য কেউ প্রস্তুত ছিল না । তবে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন তারা।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবু সাঈদ বলেন, ভারতের আসাম ও মেঘালয়ে কয়েকদিন টানা ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জামালপুরের নীচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। তবে ভারতে বৃষ্টিপাত কমে যাওয়ার কারণে উজানের পানি কমতে থাকবে।


এই বিভাগের আরো খবর