টাঙ্গাইলে ঢিলেঢালা কঠোর বিধিনিষেধ

সারাবাংলা

ইমরুল হাসান বাবু, টাঙ্গাইল থেকে:
গত সাতদিনে টাঙ্গাইলে ২২০২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৩২ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তের হার ৪০.১৪ শতাংশ। এর মধ্যে ১৭ জুন ৩১৩টির মধ্যে ১১৩টি, ১৮ জুন ৩৩৫টির মধ্যে ১৪৫টি, ১৯ জুন ২৫৮টির মধ্যে ৯২টি, ২০ জুন ১৫৩টি নমুনার মধ্যে ৪৭টি, ২১ জুন ৩৮৫টি নমুনার মধ্যে ১৬৫টি, ২২ জুন ৩৩৫টি নমুনার মধ্যে ১২১টি। এমন পরিস্থিতিতে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন সংক্রমণের হার পর্যবেক্ষণ করে টাঙ্গাইল সদর পৌরসভা ও উত্তরবঙ্গের গেটওয়ে কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভায় লকডাউন আদলে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেন টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করতে টাঙ্গাইল ও কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌর এলাকায় ২২ থেকে ২৮ জুন সাত দিনের সর্বাত্মক কঠোর বিধিনিষেধ বহাল থাকবে। এইসব এলাকায় কাঁচাবাজার, ওষুধের দোকান ছাড়া হোটেল, মার্কেটসহ সবই বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পরিবাহী ট্রাক ছাড়া রিক্সা, ইজিবাইক, সিএনজিসহ যাবতীয় যানবাহন বন্ধ থাকবে। কিন্তু বাস্তবে এই কঠোর বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে অত্যন্ত ঢিলেঢালাভাবে। টাঙ্গাইল পৌর এলাকার মধ্যে অবস্থিত নতুন বাসস্ট্যান্ড থেকে দূর পাল্লার গাড়ি ছেড়ে যেতে ও আসতে দেখা যায় বিধিনিষেধ আরোপের প্রথম দুই দিনই। টাঙ্গাইল পৌর এলাকার প্রধান প্রধান সড়কেও দেখা গেছে রিক্সা, ইজিবাইক, সিএনজিসহ যাবতীয় যানবাহনের চলাচল। নতুন বাসস্ট্যান্ড থেকে দূর পাল্লার বাস চলাচলের ব্যাপারে টাঙ্গাইল বাস-কোচ-মিনিবাস মালিক সমিতির মহাসচিব গোলাম কিবরিয়া বড়মনি জানান, বিধিনিষেধ আরোপের প্রথম দিন পুলিশ প্রশাসন থেকে বাস বন্ধ করে দেওয়া হলেও পরে মালিক-শ্রমিক নেতারা জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করলে তিনি নতুন বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস ছেড়ে যাওয়া ও প্রবেশের অনুমতি দেন। এসময় তিনি আরও জানান, ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা কোনো বিধি নিষেধ না থাকায় এই এখান থেকে বাস ছেড়ে যাচ্ছে ও আসছে। আর ঢাকা অভিমুখে গোড়াই পর্যন্ত বাস চলাচল করছে। অপরদিকে এলেঙ্গাতেও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলাসহ রিক্সা, ইজিবাইক, সিএনজিসহ যাবতীয় যানবাহন চলাচল করছে। এ বিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি মুঠোফোনে বলেন, আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ নাই, তাই নতুন বাসস্ট্যান্ড ব্যবহার করছে, কিন্তু শহরে প্রবেশ করতে পারবে না। এসময় তিনি দুটি পৌরসভার সর্বত্র কঠোর বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে বলেন দাবি করেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *