টাঙ্গাইলে ভিক্ষুকের বসতভিটা দখলের চেষ্টা

সারাবাংলা

ইমরুল হাসান বাবু, টাঙ্গাইল থেকে:
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে মুজিবর রহমান নামের এক প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকের বসতভিটা দখলের অপচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক মজিবর রহমান। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মজিবর রহমান উপজেলার গয়হাটা ইউনিয়নের রসুলপুর বনগ্রামের মৃত সোহরাব আলীর পুত্র। তিনি হাট-বাজারে ভিক্ষাবৃত্তি করে পরিবার-পরিজন নিয়ে অতি কষ্টে সংসার পরিচালনা করে আসছেন। তার শশুর রসুলপুর গ্রামের বনগ্রাম মৌজায় ৫২ নং দাগে ৩১ শতাংশ ভূমি দান করেন। সেখানে ঘর তুলে দীর্ঘ ৫০ বছর যাবত ভোগ দখল করে আসছেন। সর্বশেষ বিএস জরিপে উক্ত ভূমি সরকারি খাষ খতিয়ান ভুক্ত হয়। ওই ভূমিতে মজিবর রহমান বসত ভিটা নির্মাণ করে বসবাস করা অবস্থায় অতি গোপনে স্থানীয় প্রভাবশালী আ. জলিল মিয়া ও পতিজান বেগম বন্দোবস্ত নেয়। এরপর থেকেই তারা মজিবরকে প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে আসছে। ভিক্ষুক মজিবর জানান, তার জন্ম এই বাড়িতেই, তিনি একজন ভূমিহীন এবং প্রতিবন্ধী। পরিবারের সদস্য নিয়ে ৫০ বছর যাবৎ এই বাড়িতে বসবাস করছেন। জীবিকার প্রয়োজনে হাটে-বাজারে ঘুরে বেড়ান তিনি। এই সুযোগে আ. জলিল ও পতিজান বেগম উপজেলা ভূমি অফিসকে ভুল তথ্য দিয়ে লিজ গ্রহণ করে। তিনি লিজ বাতিলের জন্য টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক বরাবর পৃথক দুটি আবেদন করেছেন। স্থানীয় তারাভানু, আ. মতিন ও রফিক মিয়া জানান, তাদের জন্মের আগে থেকেই মজিবর এখানে বসবাস করে আসছেন। কিভাবে আ. জলিল ও পতিজান বন্দোবস্ত পেল তাদের বোধগম্য নয়। এ ব্যাপারে লিজ গ্রহিতা জলিলের সাথে তার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। অপর লিজ গ্রহিতা পতিজানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তার ছেলে হুমকির বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, সরকার লিজ দিয়েছে তারা লিজ নিয়েছে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিফাত-ই-জাহান জানান, বিষয়টি আমি অবগত। অভিযোগের সুষ্ঠতদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *