দশমিনায় লকডাউনে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন

সারাবাংলা

তাওহিদা শেফা, দশমিনা থেকে
কভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারঘোষিত সাত দিনের কঠোর লকডাউনের পঞ্চম দিনেও পটুয়াখালীর দশমিনায় লকডাউন কার্যকরে মাঠে রয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত, পুলিশ, সেনাবাহিনী, আনসার সদস্যরা। দশমিনার বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। জরুরি প্রয়োজন ছাঢ়া বাইরে বের হলে জরিমানা এবং প্রেফতারও করা হচ্ছে। তবে জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিতরা পরিচয়পত্র দেখিয়ে ও প্রয়েজনীয়তার বিষয়টি তল্লাশির সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানিয়ে গন্তব্যে বা কর্মস্থলে যেতে পারছেন। গত চার দিনের মতো গতকাল সোমবার জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যারা বাইরে বের হচ্ছেন তাদের সচেতনতার পাশাপাশি আর্থিক জরিমানা ও মামলা করছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কঠোর বিধিনিষেধের পঞ্চম দিনে বেশ সক্রিয় উপজেলা প্রশাসন এবং দশমিনা থানা পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা। তবে বিধিনিষেধ না মানার প্রবণতা দেখা গেছে মানুষের মধ্যে। অনেকেই ঘর থেকে রাস্তায় বের হয়ে জরিমানার মুখোমুখি হচ্ছেন। অনেকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হচ্ছে । বেশ কয়েকজনকে আটক করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে দশমিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জসীম বলেন, সম্প্রতি করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ায় সর্বাত্মক কঠোর লকডাউনের নির্দেশনা জারি করে সরকার। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না বের হওয়ার নির্দেশনাও দেওয়া হয়। জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হতে হলে মাস্ক পরে এবং শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরার কথাও বলা হয় নির্দেশনায়। বন্ধ রয়েছে সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্ব শাসিত সব অফিস। ১৪ জুলাই পর্যন্ত চলবে কঠোর লকডাউন।এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, গত ৪৮ ঘণ্টায় দশমিনা উপজেলায় ৩৫টি নমুনা (র‌্যাপিড এন্টিজেন) পরীক্ষায় ১৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *