দশমিনায় শীতকালীন সবজির চাষ বাড়ছে

সারাবাংলা

সাফায়েত হোসেন, দশমিনা থেকে : পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের আবাদি-অনাবাদি ও চরাঞ্চল এবং বসতঘরের আশেপাশে শীতকালিন সবজি চাষের আবাদ বাড়ছে। কৃষকরা মাঠ ভরা শীতকালিন সবজির মাঝে নতুন করে স্বপ্ন বুনছে। উপজেলায় চাহিদা মিটিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠিয়ে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হবার চেষ্টা করছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আবাদি-অনাবাদি জমিতে কৃষি প্রদর্শনী এবং শীতকালিন সবজির মহা সমারোহ বিরাজ করছে। এক সময়ে অত্র উপজেলায় শীতকালিন সবজি দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে সরবরাহ করা হতো। কৃষি জমিতে পানি থাকায় চাষাবাদ করতে পারতো না। ফলে স্থানীয় চাহিদা মিটাতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সবজি নিয়ে আসা হতো। বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং স্থানীয় চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় কৃষকরা নিজেরাই সবজি চাষে ঝুঁকে পড়েছে।স্থানীয়রা আগাম চাহিদা মেটাতে লাউ, কচু,কুমড়া, আলু, সরিষা, সিম, বরবটি, গাজর,মূলা,লালশাক,পুঁইশাক ও পালংশাক চাষ করে পুষ্টির চাহিদা মিটানেরা চেষ্টা করছে। স্থানীয়দের চাহিদা মিটাতে কৃষকরা পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ শাক-সবজি বাজারে বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে। উপজেলায় দফায় দফায় বন্যা ও প্রাকৃতিক দূর্যোগের ফলে কৃষকরা বার বার লোকসানে পড়লেও চলতি শীত মৌসুমে শীতকালিন সবজি চাষাবাদ করে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চেষ্টা করছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সার্বিক সহযোগিতায় কৃষি প্রদর্শনীর মাধ্যমে কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধকরন করা হচ্ছে। কৃষকরা এত সারা দিয়ে আবাদি ও অনাবাদি জমিতে শাক-সবজির প্রদর্শনী করছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাফর আহমেদ বলেন, কৃষকদের চাষাবাদে উৎসাহিত করার পাশাপাশি উন্নতমানের সবজিসহ অন্যান্য ফসলের ফলন বাড়ানোর জন্য প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

দেশবিদেশের গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *