দাবি একটাই রায়পুরার চরাঞ্চলে নতুন উপজেলা পরিষদ দ্রুত বাস্তবায়ন

সারাবাংলা

বশির আহম্মেদ মোল্লা, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি : নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চলে নতুন উপজেলা পরিষদ দ্রুত বাস্তবায়নের দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ঝড় উঠেছে। জানা যায়, নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার পিছিয়ে পড়া অবহেলিত এলাকায় দুর্গম চরাঞ্চলের ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে নতুন প্রশাসনিক উপজেলা পরিষদ দ্রুত বাস্তবায়ন করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দাবি করে আসছে। দুর্গম চরাঞ্চলের মধ্যস্থলে আলীনগরের আড়াকান্দা নামক স্থানে নতুন প্রশাসনিক উপজেলা পরিষদ দ্রুত বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের দফায় দফায় সভা সমাবেশ করে আসছে। চরাঞ্চলবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি আলীনগরে নতুন উপজেলা পরিষদ বাস্তবায়ন করতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলা ২৪ ইউনিয়ন ১টি পৌরসভার নিয়ে গঠিত। মেঘনা নদী বেষ্টিত চরাঞ্চলের ৬টি ইউনিয়নে ৪ লাখ লোকের বসবাস। উপজেলা সদর থেকে চরাঞ্চলের সঙ্গে ফেরি দিয়ে গাড়ী পারাপারে করে চলাচল করতে হয়। ১৯৬৮ সালেই একটি নতুন প্রশাসনিক থানা স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। গত ৫২ বছরে পদ্মা-মেঘনা-যমুনা দিয়ে অনেক পানি গড়িয়েছে। বিভিন্ন সময় বিশিষ্টজনরা আন্তরিক চেষ্টাও করেছেন, কিন্তু চরাঞ্চলবাসীর সেই স্বপ্ন আর বাস্তবায়িত হয়নি। চরাঞ্চলবাসী স্বাস্থ্য, শিক্ষা, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ সংযোগ, আইন-শৃংখলা সহ ইত্যাদি উন্নয়ন থেকে দীর্ঘদিন যাবৎ পিছিয়ে পড়েছিল। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে শেখ হাসিনার নির্দেশে সাবেক মন্ত্রী রাজিউদ্দিন রাজু-এমপির মাধ্যমে চরাঞ্চলের অন্তত কয়েকটি ইউনিয়নের সাথে উপজেলা সদরের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হয়েছে। চরাঞ্চলের চরমধুয়া, মির্জারচর ও চাঁনপুর কয়েকটি ইউনিয়নের উপজেলা সদরের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকলেও পিছিয়ে পড়া চরাঞ্চলের জন্য একটা উপজেলা খুবই অপরিহার্য। অতীতে একগুঁয়েমি ও অযৌক্তিক মতপার্থক্যের কারণে বারবার চরাঞ্চলে উপজেলা পরিষদ স্থাপনে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে। আর যেন এ রকম না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে উপজেলা সদর চরাঞ্চলের যেখানেই হোক, বাঁশগাড়ী হোক, কিংবা পাড়াতলী হোক, কিংবা বাঁশগাড়ী-পাড়াতলী সীমানায় হোক এবং যে নামেই হোক, তবু চরাঞ্চলে একটি উপজেলা স্থাপন হোক এর মাধ্যমে পশ্চাৎপদ চরাঞ্চল উন্নয়নের গতিশীল ধারায় সংযুক্ত হোক। অপ্রয়োজনীয় বিভেদের কারণে আবার যেন থেমে না যাই আমরা-সেদিকে সবাই খেয়াল রাখবো। ফেসবুকসহ সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভেদমূলক উল্টাপাল্টা মন্তব্য বাদ দিয়ে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে চরাঞ্চলে নতুন উপজেলা পরিষদ বাস্তবায়ন করতে সব শর্ত সমূহ মেনে দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য সব কার্য্যক্রম চালিয়ে আসছে। সাধারন মানুষ সচেতন করার লক্ষ্যে ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। দুর্গম চরাঞ্চলের মধ্যস্থলে আলীনগরের আড়াকান্দা নামক স্থানে নতুন প্রশাসনিক উপজেলা পরিষদ বাস্তবায়ন করতে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আ: বাছেদ চৌধুরী বাচ্চু চেয়ারম্যানের ছেলে রায়পুরা উপজেলা পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী ২০১৪ সালে সব ইউপি চেয়ারম্যানদের নিয়ে নতুন উপজেলা পরিষদ গঠনের প্রস্তাব পাশ করা হয়েছিল। ওই বছর এই প্রস্তাবটি সরকার গ্যাজেট আকারে পাশ করায় চরাঞ্চলবাসী নতুন করে আলো মুখ দেখছেন। চরাঞ্চলবাসীর মধ্যে ঐক্য গড়ে উঠেছে। নতুন প্রশাসনিক উপজেলা পরিষদ বাস্তবায়ন করতে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করা হচ্ছে। আরও জানা যায়, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাড. এবিএম রিয়াজুল কবির কাইছার এর দরখাস্তে পরিপেক্ষিতে রায়পুরা উপজেলাকে আরও ৩টি নতুন উপজেলা পরিষদ গঠনের কথা শোনা যাচ্ছে। নতুন উপজেলা রাজু-নগর নাম করন ছাড়াও চরাঞ্চলের কৃতি সন্তান আরোও ৩ জন বীর সন্তানের নাম শুনা যাচ্ছে তারা হলেনÑ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশ^স্থ এস এস এফ এর প্রধান মেজর জেনারেল মো. মুজিবুর রহমানের পিতা সাবেক ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি সহযোগী ভাষা সৈনিক বর্ষিয়ান নেতা প্রয়াত একে এম বজলুর রহমান, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোকলেছুর রহমানের পিতা বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি সহযোগী মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রয়াত ছাইদুর রহমান সরকার ছন্দু মিয়া, আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি মহান মুক্তিযুদ্ধের ৩নং সেক্টর কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার এ এন এম নুরুজ্জামান (বীর উত্তম) তাদের নামে চরাঞ্চলে নতুন উপজেলা স্থাপনের জন্য ফেসবুকসহ সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নামকরণ করার দাবি জানিয়ে ঝড় তুলছে। চরাঞ্চলবাসী নতুন উপজেলা পরিষদ দ্রুত বাস্তবায়ন করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জোর দাবি জানাচ্ছেন। এ ব্যাপারে যারা বেশী প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন ৬ বারের এমপি, সাবেক মন্ত্রী জাতীয় নেতা রাজিউদ্দিন রাজু। অপরদিকে চরাঞ্চলের কৃতি সন্তানরা নিজ এলাকা জন্মভূমির টানে নতুন উপজেলা পরিষদ বাস্তবায়ন করতে কাজ যাচ্ছে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি সহযোদ্ধা ভাষা সৈনিক বর্ষিয়ান তুখোর বক্তা প্রয়াত একে এম বজলুর রহমানের ছেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশ^স্থ এস এস এফ এর প্রধান মেজর জেনারেল মো. মুজিবুর রহমান, সায়দাবাদ গ্রামের কৃতি সন্তান আইন ও বিচার মন্ত্রণালয়ের সচিব ময়নুল কবীর, বাঁশগাড়ীর কৃতিসন্তান বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি সহযোগী মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রয়াত ছাইদুর রহমান সরকার ছন্দু মিয়ার ছেলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মোকলেছুর রহমান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব উম্মে সালমা তানজিয়া, বাঁশগাড়ীর কৃতি সন্তান র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার প্রধান লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাসেম (সাগর), কৃষি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মুর্শিদা সিকদার, বাণিজ্যমন্ত্রীর পিএস মাইনুল সিকদার, সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (অব:) মনিরুজ্জামান নিসার, প্রয়াত ছাইদুর রহমান সরকার ছন্দু মিয়া ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান বিশিষ্ট শিল্পপতি ফাইজুর রহমান সরকার আ: বাছেদ, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ভাষা সৈনিক একে এম বজলুর রহমান ফাউন্ডেশনের পরিচালক মো. ফেরদৌস কামাল জুয়েল ও পরিচালক প্রকৌশলী আসওয়াত আকসির মুজিব ওয়াসি সহ চরাঞ্চলের বিভিন্ন পেশার গুনীজন, সরকারি কর্মকর্তারা, সাংবাদিকরা, রাজনীতিক নেতারা, শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীরা, ইউপি চেয়ারম্যানরা, ইউপি সদস্যরা ঐক্যবদ্ধভাবে সাড়া দিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন।
অপর দিকে সরকারি গ্যাজেট অনুযায়ী চরাঞ্চলে আড়াকান্দা নামক স্থানে রাজু-নগর নতুন উপজেলা পরিষদ স্থাপনের দাবি জানিয়ে আসছেন রায়পুরা উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুস সাদেক, চরাঞ্চল উন্নয়ন কমিটি সভাপতি ও বাঁশগাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় সভাপতি বেলাল আহমেদ ও চরাঞ্চল উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাবেক চেয়ারম্যান রিয়াজ মুর্শেদ খান রাশেল, চরমধুয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় সভাপতি আহসান সিকদার, কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আবুল বাসার প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *