দেড় হাজার হেক্টর ধান জলের নিচে সরাইলে দিশাহারা কৃষক

সারাবাংলা

শেখ মো. ইব্রাহীম, সরাইল থেকে
টানা কয়েক দিনের ভারি বর্ষণ ও উজানের ঢলের জলে উপজেলার ৯নং ইউনিয়নের দেড় হাজার হেক্টর রোপা আমন ধান জলের নিচে তলিয়ে গেছে। জানা যায়, উপজেলার দুবাজাইল, ঘুজিয়াখাইল, ফেদিয়ারকান্দি, ধামাউড়া, পানিশ্বর, চুন্টা, শাহাজাদাপুর ও কালীকচ্ছ গ্রামের রোপা আমন ধান জলে ডুবে থাকার পর ধানের বাড়ন্ত সবুজ শীষ হয়ে গেছে বিবর্ণ। কোথাও কোথাও তা কাদামাটির সঙ্গে লেপ্টে গেছে। ঘাম ঝরানো ফসলের এমন দৃশ্যে নির্বাক কৃষক। কৃষক নাজমুল হক বলেন, আমনের চারা শ্রাবণ মাসেই রোপণ করতে হয়। আবার সেপ্টেম্বরের শেষে ফের বন্যায় অধিকাংশ কৃষকের আমনের বীজতলা ডুবে গেছে। এমন অনেক কৃষক আছেন, যাদের পক্ষে আমনের চারা কিনে আমন ধান চাষ করা সম্ভব নয়। এসব কৃষক খুব দুশ্চিন্তার মধ্যে আছেন। কালীকচ্ছ গ্রামের কৃষক মোঃ শফিকুল ইসলাম বলেন, ধার-দেনা আর দোকান থেকে সার বাকি নিয়ে ৫ বিঘা জমিতে আমন ধান করেছিলাম। চোখের সামনে বন্যার জলে তা ডুবে গেল। শুধু চেয়ে চেয়ে দেখলাম। তবে এখন সব শেষ। আমনের বীজতলাও ডুবে গেছে। ফলে এবার আর কোনোভাবেই আমন চাষ করা সম্ভব হবে না। এই জল কত দিনে নেমে যাবে, তার কোন নিশ্চয়তা নেই। ফলে আমনের আবাদ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছি। অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া বলেন, বন্যায় কৃষক ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। জল নেমে গেলে ক্ষতি কতটুকু তা জানা যাবে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কাওসার আহমেদ বলেন, আশা করছি, কয়েকদিনের মধ্যে জল নেমে যাবে। তবে জল দীর্ঘদিন থাকলে ক্ষতি হতে পারে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *