নওগাঁ জেলা পুলিশের উদ্যোগে প্রচার-প্রচারণার উদ্বোধন

জাতীয়

নওগাঁ প্রতিনিধি
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানের জন্য একটি আধুনিক জনবান্ধব পুলিশ বাহিনী গঠনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ পুলিশ পরিবারের সর্বোচ্চ অভিভাবক, স্বপ্ন যাত্রার অগ্রনায়ক, আধুনিক পুলিশের রূপকার ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ, বাংলাদেশ ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) মহোদয় বাংলাদেশ পুলিশে কনস্টেবল নিয়োগে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতার মাধ্যমে যোগ্য প্রার্থী নির্বাচনে নতুন নিয়ম ও পদ্ধতির প্রবর্তন করেছেন। এই নিয়মে পুলিশ কনস্টেবল পদে ভর্তি করার জন্য মোট ৭টি ধাপ অনুস্মরণ করা হবেঃ প্রিলিমিনারি স্ক্রিনিং, শারীরিক মাপ, লিখিত পরীক্ষা, মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষা, প্রাথমিক নির্বাচন, পুলিশ ভেরিফিকেশন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং চূড়ান্তভাবে প্রশিক্ষণে অন্তর্ভুক্তকরণ। নতুন নিয়মে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করনে জেলা পুলিশ নওগাঁ, পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া বিপিএম এর নেতৃত্বে আনুষ্ঠানিকভাবে জেলার এগারোটি থানা থেকে সংবাদ সম্মেলন এর মাধ্যমে একযোগে প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছে। জেলা পুলিশ কর্তৃক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার বলেন, নওগাঁ জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ডিজিটাল ডিসপে¬তে এবং স্থানীয় কেবল অপারেটরের মাধ্যমে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগের নতুন পদ্ধতি ও তথ্য নিয়মিত প্রচার করা হবে। কোন দালাল কিংবা প্রতারক চক্র যাতে চাকরি প্রার্থীদের নিকট হতে প্রতারণা করে চাকরি প্রদানের নামে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিতে না পারে সেজন্য জেলা পুলিশ কঠোর নজরদারি বৃদ্ধি করবে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হবে। দালাল, প্রতারক, তদবীরবাজ কিংবা অন্য যে কেউ যাতে চাকরি প্রার্থীদের প্রতারিত করতে না পারে সেজন্য জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিট সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং দালালদের টার্গেট মোবাইল নম্বর সার্বক্ষণিক মনিটরিং করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। চাকরি প্রার্থীদের পরিবারের অস্বাভাবিক ব্যাংক লেনদেন, জমি-জমা ও মূল্যবান সম্পদ বিক্রয়, অর্থ লেনদেন ও ধার-কর্জ ইত্যাদি কঠোর ভাবে মনিটরিং করা হবে। অনেক অভিভাবক চাকরি প্রার্থীদের সাথে মেয়েকে বিবাহ বন্ধনের প্রতিশ্রুতিতে যৌতুক হিসেবে টাকা পয়সা প্রদান করে থাকেন যা প্রচলিত আইনে দন্ডনীয় অপরাধ। বিষয়টি নওগাঁ জেলা পুলিশের নজরদারির মধ্যে রাখা হবে। কোন চাকরি প্রত্যাশী কারো মাধ্যমে তদবীর বা অসৎ পন্থা অবলম্বন করলে তাকে অযোগ্য বলে বিবেচনা করা হবে এবং চাকরির নিয়োগের যে কোন পর্যায়ে দুর্নীতি প্রমাণিত হলে তার নিয়োগ বাতিল করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে সকল ধরণের অবৈধ অর্থনৈতিক লেনদেন এবং অবৈধ তদবীর বন্ধের জন্য নওগাঁ জেলা পুলিশের পক্ষ হতে বিট পুলিশিং, কমিউনিটি পুলিশিং, উঠান বৈঠক, অপরাধ দমন সভা, মসজিদ, মন্দির প্রভৃতি সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালানো হবে। পুলিশ নিয়োগ সংক্রান্তে কোথাও কোন অনৈতিক লেনদেন অথবা কোন অবৈধ পন্থা অবলম্বনের ঘটনার তথ্য কেউ পুলিশকে প্রদান করলে তাকে পুলিশের পক্ষ হতে পুরস্কৃত করা হবে এবং তথ্য দাতার নাম পরিচয় গোপন রাখা হবে। নিয়োগ সংক্রান্তে অবৈধ লেনদেন বা দুর্নীতির যে কোন তথ্য প্রদানের জন্য সংশি¬ষ্ট থানার অফিসার ইনচার্জ কিংবা পুলিশ কন্ট্রোল রুমের ০১৩২০-১২৪৪৯৮ নম্বরে অথবা নওগাঁ জেলা পুলিশের হট লাইন ০১৩২০-১২৪৪৯৯ নম্বর অথবা ৯৯৯ নম্বরে অথবা সরাসরি পুলিশ সুপারের সাথে যোগাযোগ করা যাবে। পুলিশ নিয়োগ সংক্রান্তে অবৈধ লেনদেন কিংবা প্রতারক চক্রকে ধরার জন্য জেলা পুলিশের বিশেষ টিম সাদা পোশাকে জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করবে। প্রতিটি থানায় পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ সংক্রান্তে তথ্য প্রদান হেল্প ডেস্ক স্থাপন করা হবে। ইতোমধ্যে জেলা পুলিশের তালিকাভূক্ত তদবীরবাজ ও দালালদের গোয়েন্দা নজরদারিতে আনা হয়েছে এবং তাদের গতি-বিধি নিবিড় ভাবে পর্যবক্ষেণ করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশে ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ, বাংলাদেশ ডঃ বেনজীর আহমেদ, বিপিএম (বার) পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগের যে নতুন যুগান্তকারী প্রক্রিয়া ও পদ্ধতির প্রবর্তন করেছেন সেখানে কোন ধরণের অনিয়ম কিংবা কোন চাকুরি প্রার্থীকে বিশেষ সুবিধা প্রদানের কোন সুযোগই নেই। বিধায় সকলকে যে কোন ধরণের তদবির কিংবা অবৈধ লেনদেন না করার জন্য বিশেষ অনুরোধ করা হচ্ছে। এই বিশাল কর্মযজ্ঞকে সফল করার জন্য রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, মাননীয় সংসদ সদস্য, ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ সমাজের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের সহযোগিতা নেওয়া হবে। সংবাদ সম্মেলনে জেলা পুলিশের সকল সিনিয়র অফিসার উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *