নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীর বিপরীতে বলিউড সিরিজে জয়া

বিনোদন

ডেস্ক রিপোর্ট : ২০০৪ সাল থেকে বাংলাদেশে এবং ২০১৩ সাল থেকে এপার-ওপার দুই বাংলায়ই সমানে দ্যুতি ছড়িয়ে চলেছেন অভিনেত্রী জয়া আহসান। বাকি ছিল বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি বলিউড। সেখানেও খুব শিগগির পা রাখতে চলেছেন এই বাংলাদেশি সুন্দরী।

সবকিছু ঠিক থাকলে নতুন বছরে একটি হিন্দি ওয়েব সিরিজে দেখা যাবে জয়া আহসানকে। সেখানে তিনি অভিনয় করবেন বলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীর বিপরীতে।

নাম ঠিক না হওয়া ওই সিরিজটি পরিচালনা করবেন সায়ন্তন মুখোপাধ্যায়। জয়ার অভিনয়ের ব্যাপারটা সংবাদমাধ্যমকে তিনিই নিশ্চিত করেছেন। এও জানিয়েছেন, আগামী বছর ক্যামেরাবন্দি করবেন তার প্রথম রাজনৈতিক ওয়েব সিরিজ। যার পটভূমিকায় থাকবে ১৯৬৭ সালের নকশালবাড়ি আন্দোলন।

তৎকালীন বিতর্কিত পুলিশ অফিসার রুণু গুহ নিয়োগীর লেখা ‘সাদা আমি কালো আমি’ উপন্যাস অবলম্বনে বাংলা, হিন্দি, ইংরেজি তিনটি ভাষায় নির্মিত হবে সিরিজটি। পরিচালক জানান, এখানেই চারু মজুমদারের চরিত্রে থাকবেন নওয়াজবুদ্দিন সিদ্দিকী। তার স্ত্রী লীলা মজুমদারের ভূমিকায় দেখা যাবে জয়াকে।

তিনি আরও জানান, সিরিজে রুণু গুহ নিয়োগীর চরিত্রে থাকবেন ‘আদালত’ অনুষ্ঠানের ‘কেডি পাঠক’ খ্যাত অভিনেতা রণিত রায়। এছাড়া কলকাতা থেকে ‘ফেলুদা’ খ্যাত সব্যসাচী চক্রবর্তীরও থাকার কথা রয়েছে। তাকে দেখা যাবে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়ের ভূমিকায়।

এখানেই শেষ নয়, আরও আছেন শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। তাকে ভাবা হয়েছে চারু মজুদারের অন্যতম সঙ্গী কানু সান্যালের চরিত্রে। এছাড়া জ্যোতি বসুর চরিত্রের জন্য ভাবা হয়েছে দুই বলিউড অভিনেতার নাম। তারা হলেন পরেশ রাওয়াল এবং বোমান ইরানি।

প্রাথমিক পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনটি পর্বে দেখানো হবে এই রাজনৈতিক ওয়েব সিরিজ। প্রথম পর্বে থাকবে ১৯৪৭-১৯৭২ সাল। ১৯৭২-১৯৯০ পর্যন্ত উঠে আসবে দ্বিতীয় পর্বে। শেষ পর্বে থাকবে তার পরের সময় থেকে বর্তমান প্রেক্ষাপট।

এদিকে, চলতি বছরের পূজার পরই মুক্তি পাবে পরিচালক সায়ন্তনের সিনেমা ‘ঝরা পালক’। জীবনানন্দ দাশের জীবন নিয়ে তৈরি এই ছবিতে কবির স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের জয়া আহসান।

পরিচালক সায়ন্তন বলেন, ‘জয়ার সঙ্গে আমার পরিচয় তখন থেকেই। তিনি অনুরোধ জানিয়েছিলেন, জাতীয় স্তরের কোনো কাজে তাকে সুযোগ দেওয়ার জন্য। সেই জায়গা থেকেই লীলা মজুমদারের চরিত্রের জন্য জয়াকে প্রস্তাব দেই। এক কথায় তিনি রাজি হয়ে যান।’

মন্তব্য করুন