বলের আগুনে জড়ালেন খালেদ আহমেদ

খেলাধুলা

খেলাধুলা ডেস্ক: টেস্ট স্কোয়াড চূড়ান্ত করার আগে কারো কারো পারফরম্যান্স পরখ করতে সারা দিনই খেলা দেখলেন দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন ও হাবিবুল বাশার। তাঁদের সামনে নতুন ও পুরনো বলে নিজের কার্যকারিতা দেখিয়ে জায়গার দাবি জানিয়ে রাখলেন সৈয়দ খালেদ আহমেদও।

তবে ৪৬ রানে ৩ উইকেট নেওয়া এই পেসার নন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বিসিবি একাদশের সফলতম বোলার রিশাদ হোসেন। জাতীয় দলের ত্রিসীমানায় না থাকা এই লেগস্পিনার শুরুতে ম্যাচের একাদশে ছিলেন না অবশ্য। তবে প্রস্তুতি ম্যাচ যেহেতু, যখন-তখন যাঁর-তাঁর খেলার সুযোগ উন্মুক্ত।

তিন দিনের ম্যাচের প্রথম দিন মধ্যাহ্নভোজের বিরতির সামান্য আগে বোলিংয়ে আসা এই তরুণই দিনশেষে পারফরম্যান্সের আলোয় উজ্জ্বল সবচেয়ে বেশি। ৭৫ রানে নিয়েছেন ৫ উইকেট।

খালেদের সঙ্গে রিশাদের লাইন আর লেন্থ মানা বোলিংয়ের ফাঁদে পড়ে ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রথম টেস্টের আগে ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং প্রস্তুতিও হলো না জমাট। তাঁরা ২৫৭ রানে অল আউট হওয়ার পর বিসিবি একাদশ বিনা উইকেটে ২৪ রান তুলে শেষ করেছে দিন।

ক্যারিবীয়দের প্রস্তুতির ফাঁক রেখে দিতে স্বাগতিকরা এই ম্যাচে কোনো বাঁহাতি স্পিনারকেই খেলায়নি। এমনকি উইকেটও স্পিন সহায়ক ছিল না।

মরা ঘাসে ভরা এই উইকেটেও রিশাদের লেগস্পিনের সঙ্গে দুই অনিয়মিত অফস্পিনার শাহাদাত হোসেন ও সাইফ হাসানের বোলিংয়েও ধুঁকেছে সফরকারী দলের ব্যাটসম্যানরা। যা আসন্ন টেস্ট সিরিজের আগে স্বাগতিকদের যেন এই বার্তাই দিচ্ছে যে, ‘স্পিন আক্রমণ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ো।’

অথচ রিশাদের বলে টার্নের ব্যাপার-স্যাপার তেমন ছিলই না। খোদ ক্যারিবীয় টেস্ট অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েটের কথায়ও আছে সে স্বীকারোক্তি, ‘লেগস্পিনারটা দারুণ বোলিং করেছে। এমন নয় যে ওর বলে বড় কোনো টার্ন ছিল। ও মূলত নিজের লাইন আর লেন্থে ধারাবাহিক ছিল ভীষণ।’

অন্যদের রিশাদের বলে খাবি খাওয়ার দিনে দারুণ ব্যাটিং প্রস্তুতি বলতে হয়েছে শুধু ব্রাথওয়েটেরই। ৮৫ রানের ইনিংস খেলা অধিনায়ক অন্য ওপেনার জন ক্যাম্পবেলকে (৪৪) নিয়ে শুরুটা অবশ্য ভালোই করেছিলেন। ৬৭ রানের সূচনা এনে দেওয়া ক্যারিবীয়রা প্রথম সেশনটিও পার করে দিয়েছিল স্বাচ্ছন্দ্যেই। ১ উইকেটে ৮৯ রান তোলে তারা।

যদিও মধ্যাহ্নভোজের বিরতির আগে বোলিংয়ে এসেই ২৫ রানে থাকা ব্রাথওয়েটকে তুলে নিতে পারতেন রিশাদ। কিন্তু নিজের বলে তিনি ফিরতি ক্যাচ ফেলায় বেঁচে যান ব্রাথওয়েট। এরপর ক্যারিবীয় অধিনায়ক উইকেটে টিকে থাকায় মনোযোগী হওয়ায় লম্বা হয়েছে তাঁর ইনিংস।

তবে দ্বিতীয় সেশনেই ৫ উইকেট হারিয়ে দলকে বিপদেও পড়ে যেতে দেখেছেন তিনি। অন্য প্রান্তে ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিলের মধ্যে তাঁকে কিছুটা সঙ্গ দেন কাইল মেয়ার্স (৪০)।

সপ্তম উইকেটে তাই যোগ হয় ৫৩ রান। নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ব্রাথওয়েট খেলে যান ১৮৭ বল। তাঁকে ফেরান খালেদ। শেষ উইকেটটি নিয়ে এরপর নিজের ৫ উইকেট পূর্ণ করেন রিশাদও।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ওয়েস্ট ইন্ডিজ : ৭৯.১ ওভারে ২৫৭ (ব্রাথওয়েট ৮৫, ক্যাম্পবেল ৪৪, মেয়ার্স ৪০, জোসেফ ২৫, মোজলি ১৫; রিশাদ ৫/৭৫, খালেদ ৩/৪৬, সাইফ ১/২৬, শাহাদাত ১/২৯)।

বিসিবি একাদশ : ৮ ওভারে ২৪/০ (সাইফ ১৫*, সাদমান ৩*)।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *