নাটোরে বিপৎসীমার ওপরে বন্যার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

সারাবাংলা

নাটোর প্রতিনিধি: উজান থেকে নেমে আসা ঢলে নাটোরের সিংড়ার আত্রাই নদী ও নলডাঙ্গা বারনই নদীর পানি বেড়েছে। বন‌্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে নিম্নাঞ্চল। বেড়েছে দুর্ভোগ।

শনিবার (০৩ অক্টোবর) সকালে সিংড়া পয়েন্টে আত্রাই নদীর পানি কিছুটা কমে বিপৎসীমার ৫১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার এই পয়েন্টে বিপৎসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। অপরদিকে নলডাঙ্গার বারনই নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমার ২৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গতকাল এই পয়ন্টে বিপৎসীমার ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়।

গতকাল সোলাকুড়া ও তাজপুর দুটি বাঁধ ভেঙে নতুন করে প্লাবিত হয়েছে বেশ কিছু গ্রাম। ভেঙে গেছে শতাধিক বাড়ি।
অবৈধ সুতি জাল, দীর্ঘদিন নদীর ড্রেজিং না হওয়া, নদী ও বিলের সংযোগ বন্ধ করা, খাল ভরাট ও বিলের আয়তন কমে যাওয়ায় এ দুর্যোগের জন্য দায়ী করেন এলাকাবাসী।

নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, বারনই নদীর পানি কমতে শুরু করেছে। তবে বিল এলাকা ছাড়াও পানি প্রবেশ করেছে পৌর এলাকায়। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে লোকজন। বন্যার্ত পরিবারের সদস্যদের সার্বক্ষণিক খোঁজ রাখা হচ্ছে। দেওয়া হচ্ছে খাদ্য সহায়তা।

সিংড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাসরিন বানু জানান, সিংড়া পয়েন্টে আত্রাই নদীর পানি সামান‌্য কমেছে। তবে পৌর এলাকার শোলাকুড়া মহল্লা ও তাজপুর ইউনিয়নের তাজপুর-হিয়াতপুর বাঁধ ভেঙে গেছে। এতে নতুন করে ওই এলাকার বিভিন্ন পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। প্রায় ৬০টি বাড়ি হুমকির মুখে পড়েছে।

নাটোর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান জানান, আত্রাই নদীর পানি সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরের হুরাসাগর হয়ে যমুনায় যায়। এই পথের অনেক জায়গায় সোঁতিজাল দেওয়ায় নদীর পানি প্রবাহে বাঁধা সৃষ্টি করায় বন্যার পানি নামতে দেরি হচ্ছে।

 

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *