নেইমারের পাশে ব্রাজিল সরকার

খেলাধুলা

স্পোর্টস ডেস্ক: বর্ণবাদ মন্তব্যে উত্তাল লিগা ওয়ান। রবিবার ফ্রান্সের প্রিমিয়র ডিভিশন ফুটবল লিগে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন পিএসজি মুখোমুখি হয়েছিল মার্সেই’য়ের। ম্যাচের সংযুক্তি সময়ে একটি ফাউলকে কেন্দ্র করে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন দু’দলের ফুটবলাররা। লাল কার্ড দেখানো হয় দু’দলের ৫ জন ফুটবলারকে। যার মধ্যে রয়েছেন লিগের সবচেয়ে দামি ফুটবলার পিএসজি’র ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার দি স্যান্তোস জুনিয়র।

যদিও নেইমারের লাল কার্ড দেখার পিছনে রয়েছে অন্য গন্ধ। বিপক্ষ মার্সেই’য়ের এক ফুটবলার আলভারো গঞ্জালেসের বিরুদ্ধে এদিন ম্যাচের পর বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ জানিয়েছেন নেইমার। দু’দলের ফুটবলাররা যখন বচসার মধ্যে জড়িয়েছিলেন, ঠিক সেই সময় মার্সেই ফুটবলারটিকে পিছন থেকে এসে মাথায় আঘাত করেন নেইমার। তাঁর প্রতি বর্ণবৈষম্যের কারণেই ক্ষুব্ধ ব্রাজিলিয়ান তারকা এমন কান্ড ঘটান। প্রাথমিকভাবে নজর এড়িয়ে গেলেও ভিএআর প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে নেইমারকেও লাল কার্ড দেখিয়ে বাইরে বের করে দেন রেফারি।

লাল কার্ড দেখে মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সময় ম্যাচ অফিসিয়ালকে নেইমার জানান যে তিনি বর্ণবাদের শিকার। ম্যাচের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্রজিলিয়ান তারকা জানান আলভারো তাঁকে ‘বানর’ বলে সম্বোধন করেছেন। নেইমারের অভিযোগকে সমর্থন জানিয়ে আগেই পাশে দাঁড়িয়েছিল ক্লাব। এবার নিজের দেশকে কঠিন সময়ে পাশে পেলেন তিনি। সম্প্রতি ব্রাজিলের মানবাধিকার মন্ত্রক থেকে এবিষয়ে একটি বিবৃতি জারি করা হয়েছে। যেখানে স্পষ্ট জানানো হয়েছে, ‘ক্রীড়াঙ্গনে আরও একবার বর্ণবাদের ঘটনা সামনে এল। এক্ষেত্রে ব্রাজিলের মানবাধিকার মন্ত্রক নেইমার জুনিয়রের প্রতি সংহতিপরায়ণ। কারণ বর্ণবাদ একধরনের অপরাধ।’

ঘটনায় অসন্তুষ্ট নেইমার টুইটারে তাঁর প্রতি বর্ণবাদ মন্তব্য নিয়ে সরব হয়েছিলেন ওইদিন ম্যাচের পর। ক্ষুব্ধ ব্রাজিলিয়ান তারকা লিখেছিলেন, ‘আমার একটাই আফসোস আমি কেন ওই গাধাটার (আলভারো) মুখে মারলাম না।’ নেইমারের অভিযোগকে গুরুত্ব দিয়ে বর্ণবৈষম্যমূলক মন্তব্য নিয়ে সরব হয়েছিলেন পিএসজি কোচও। টাচেল বলেছিলেন, ‘নেইমার আমাকে বলেছে যে ওকে বর্ণবৈষম্যমূলক মন্তব্য করা হয়েছে। খেলা হোক বা অন্য কিছু, জীবনের কোনও ক্ষেত্রে বর্ণবাদের মতো ঘটনা বাঞ্ছনীয় নয়।’

ব্রাজিলের রাষ্ট্রপতি জের বলসোনারো ওইদিন ম্যাচের পর নেইমারের উদ্ধৃতিগুলো রি-টুইট করেছিলেন। এরপরেই আন্দাজ পাওয়া গিয়েছিল ব্রাজিলের সরকার তাঁর পাশেই রয়েছে। যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা বর্ণবৈষম্যের ঘটনা অস্বীকার করেছেন আলভারো।

 

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *