পঞ্চম ওভারেই ওয়ারিকানকে ফিরিয়ে বাংলাদেশের শুভ সূচনা

খেলাধুলা জাতীয়

ডেস্ক রিপোর্ট: লিড কত হলে ভালো হয় বাংলাদেশের জন্য। ওয়েস্ট ইন্ডিজের লক্ষ্য ৪০০ প্লাস লিড দেয়া। বাংলাদেশের লক্ষ্য লিড ৩০০ রানের বেশি যেতে না দেয়া। ৩০০ হলেও যে সেটা তাড়া করা কঠিন হয়ে যাবে!

দুই দলের নিঃসন্দেহে দুই লক্ষ্য। এই দুটি লক্ষ্য সামনে রেখেই ঢাকা টেস্টের চতুর্থ দিন খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তৃতীয় দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ছিল ৩ উইকেট হারিয়ে ৪১ রান। এনক্রুমাহ বোনার ৮ এবং জোমেল ওয়ারিকান ছিলেন ২ রানে।

প্রথম ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পেয়েছে ১১৩ রানের লিড। ফলে ম্যাচ জিততে দ্বিতীয় ইনিংসে তাদেরকে অল্পে অলআউট করা একপ্রকার বাধ্যতামূলক বলা চলে বাংলাদেশের জন্য। সে লক্ষ্যে তৃতীয় দিন শেষ বিকেলে ৪০ রানের আগেই ৩ উইকেট তুলে নেয় টাইগাররা, ক্যারিবীয়দের চাপে রেখেই শেষ করে দিনের খেলা।

সে ধারাবাহিকতা বজায় রাখলো চতুর্থ দিন সকালেও। নাইটওয়াচম্যান হিসেবে নামা জোমেল ওয়ারিকানকে সাজঘরে পাঠিয়ে দিনের শুরুটা ইতিবাচকভাবেই করল বাংলাদেশ।

ক্যারিবীয়দের দ্বিতীয় ইনিংসে নতুন বলটা দলের একমাত্র পেসার রাহীর হাতে দেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। মূলত তৃতীয় দিনে হওয়া ২১ ওভারের মধ্যে এক ওভারও পাননি রাহী। আজ রাহীকে দিয়েই বোলিংয়ের শুরুটা করেছে বাংলাদেশ। সফলতা মিলতেও খুব একটা দেরি হয়নি।

চতুর্থ উইকেট পতনের পর উইকেটে আসেন আগের ম্যাচের নায়ক কাইল মায়ারস। প্রথম বলেই চার মেরে শুরু করেন তিনি। সেই ওভারের শেষ বলটি বেরিয়ে যাচ্ছিল অফস্ট্যাম্প দিয়ে। ব্যাট এগিয়ে দিয়েও সরিয়ে নেন মায়ারস, বল জমা পড়ে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের গ্লাভসে।

বাংলাদেশ দল আবেদন করলেও আউট দেননি আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওর্থ। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, সেই বলটি লিটনের গ্লাভসে যাওয়ার পথে মায়ারসের ব্যাটের বাইরের কানা ছুঁয়ে গেছে। অর্থাৎ রিভিউ নিলে সে উইকেটটি পেতে পারত বাংলাদেশ, সাজঘরের পথ ধরতে হতো মায়ারসকে। সিদ্ধান্থীনতায় তা আর হয়নি।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৩০.১ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৬১ রান। এনক্রুমাহ বোনার ২৩ ও কাইল মায়ারস ৫ রানের অপরাজিত রয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *