পটুয়াখালীতে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যকে অহেতুক হয়রানির অভিযোগ

সারাবাংলা

মোসাম্মৎ মাহিনুর বেগম, পটুয়াখালী থেকে
পটুয়াখালী সদর উপজেলায় অবসরপ্রাপ্ত সেনাবাহিনীর সদস্য মো. শেরফুল ইসলাম টিপুকে অহেতুক হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে। সে উপজেলার জৈনকাঠী ইউনিয়নের সেহাকাঠীর মো. হানিফ সিকদারের ছেলে। রাঙ্গামাটির রিজাব বাজার নামক স্থান থেকে গত রোববার মোসাম্মৎ রাহেলা বেগম (৩০) এবং তার মেয়ে জান্নাতারা নিপা (৪) নিয়ে টিপুর মামা গাজী গোলাম সরোয়ারের বাসায় উঠে। রেহেলা বেগম দাবি করেন শেরফুল ইসলাম টিপু তার স্বামী ও জান্নাতারা নিপা কন্যা। এঘটনায় এলাকায় বিভিন্ন গুঞ্জন চলছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে রেহেলা বেগম জানান, ২০১০ সালে তাদের বিয়ে হয়েছে। কিন্তু তার কাছে নেই কাবিননামা বা অন্য কোন প্রমাণাদি। অবসরপ্রাপ্ত সেনাবাহিনী সদস্য মো. শেরফুল ইসলাম টিপু জানান, আমি সরকারি চাকরি করা সুবাদে বিভিন্ন জেলায় আমার পোস্টিং হয়েছে। তেমনি রাঙ্গামাটিও আমার পোস্টিং হয়েছিল। সেখানে আমাদের ক্যাম্পের কাছে এই মেয়েদের বাড়ি ছিল। সেই সুবাদে তাদের সঙ্গে আমাদের সবার কম-বেশি পরিচয় ছিল। এই মেয়েরা পাঁচ বোন ছিল, যারা সবাই অনৈতিক কাজের সঙ্গে জড়িত ছিল। এই রেহেলা বেগমের সঙ্গে আমার কোন বিয়ে হয়নি, এমনকি এই বাচ্চাও আমার নয়। আমাকে হয়রানি করা ও আমার কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য এই মিথ্যা নাটক সাজিয়েছে। আমি রাঙ্গামাটি থাকা অবস্থায় ওরা অভাবগ্রস্ত বলে অনেক সময় আমি ওদের সাহায্য সহযোগিতাও করেছি। ওরা আমার দেশের বাড়ির ঠিকানা জানতো। আমি রাঙ্গামাটি থেকে বদলী হয়ে এসেছি এবং পরবর্তীতে অবসর গ্রহণ করি। আমার স্ত্রী আছে এবং একটি ছেলে ও একটি মেয়ে আছে। এলাকার কিছু কুচক্রী লোকজন যারা মানুষের ভালো দেখতে পারে না। তারা ওই মেয়েকে পুঁজি করে আমার কাছে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করে বলে টাকা দিলে আমরা ব্যাপারটা মিমাংসা করে দেবো। আমি কেন টাকা দেবো, আমি কোন অপরাধ করিনি। দরকার হলে আমি মামলা করবো। ওই কন্যা শিশুর ডিএন পরীক্ষা করে দেখুক আসলে সে আমার ঔরষজাত কিনা। এভাবে মিথ্যা বিয়ের নাটক সাজিয়ে একজন অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যকে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন সে সহ তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *