প্যারিসে মেসির হোটেলের ভাড়া প্রতি রাতে ২০ লাখ টাকা

খেলাধুলা
ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল, হলিউডের সিনেমা প্রযোজক ওয়াল্ট ডিজনি ও অভিনেতা রবার্ট ডি নিরোও রয়্যাল মনচিআও হোটেলে থেকেছেন। বাসা খুঁজে পাওয়ার আগে এই পাঁচ তারকা হোটেলেই থাকতে হবে মেসিকে।

সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, প্রতি রাতে এই হোটেলের ভাড়া ১৭ হাজার পাউন্ড। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ২০ লাখ টাকা। ১৯২৮ সালে যাত্রা শুরু করা এ হোটেল প্যারিসে শিল্পী, সেলিব্রিটি ও বুদ্ধিজীবীদের দেখা করার জায়গা।

মেসির বর্তমান ক্লাব সতীর্থ ও বন্ধু নেইমারও এই হোটেলে থেকেছেন। বার্সেলোনা ছেড়ে ২০১৭ সালে তিনি পিএসজিতে যোগ দেওয়ার সময় এই রয়্যাল মনচিআও হোটেলেই ছিলেন। প্যারিসের সবচেয়ে বিলাসবহুল অঞ্চলে অবস্থিত মনচিআও হোটেল।

হোটেলটিতে প্রায় সময়ই নানা রকম চিত্র প্রদর্শনী হয়ে থাকে। একঘেয়েমি কাটাতে এসব প্রদর্শনীতে সময় কাটাতে পারে মেসি ও তাঁর পরিবার।

২৩ মিটার লম্বা সুইমিং পুল (প্যারিসে হোটেলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড়), সিনেমা দেখার ব্যক্তিগত জায়গা ছাড়াও ছয়টি বিলাসবহুল রেস্টুরেন্ট রয়েছে এ হোটেলে। মাতসুইশা রেস্টুরেন্ট এর মধ্যে সবচেয়ে খ্যাতিমান খাবার জায়গা। জাপানিজ থেকে পেরুভিয়ান রসুইঘরের খাবার পরিবেশন করা হয় এখানে।

পিএসজির সঙ্গে দুই বছরের চুক্তি করেছেন মেসি। চাইলে চুক্তির মেয়াদ আরও এক বছর বাড়াতে পারবেন বার্সেলোনার সাবেক এ ফরোয়ার্ড। বেতন-ভাতা মিলিয়ে ক্লাবটিতে বছরে ৩ কোটি ৫০ লাখ ইউরো পারিশ্রমিক পাবেন তিনি।

পিএসজিকে খেলোয়াড়দের বার্ষিক বেতন বাবদ প্রচুর অর্থই খরচ করতে হচ্ছে—২৫ কোটি ২০ লাখ পাউন্ড। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ২ হাজার ৯৫৭ কোটি টাকা। মনচিআও হোটেলে ১৪ হাজার ৮২৩ রাত থাকলে এ পরিমাণ টাকা খরচ হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *