প্রচারণায় তুঙ্গে

সারাবাংলা

মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট) প্রতিনিধি:
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে হোগলাপাশা ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশায় একাধিক প্রার্থী মাঠে। প্রচারণায় তুঙ্গে। সবত্রই চলছে ভোটের আলোচনা। নতুনরা চায় পরিবর্তন। বর্তমান চেয়ারম্যান বিগত ৫ বছরে উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরে চাচ্ছেন দলীয় প্রতিক। দলীয় প্রত্যাশীরা হলে বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল ইসলাম নান্না, ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক ফরিদুল ইসলাম ফরিদ, মনি শংকর হালদার, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাড. মিজানুর রহমান খোকন ও সাবেক চেয়ারম্যান ইলিয়াস শেখ, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নাঈম আল মামুন লিয়ন।
হোগলাপাশা ইউনিয়ন। দীর্ঘদিনের স্মৃতি বিজড়িত এ ইউনিয়নটিতে রয়েছে ইতিহাস ঐতির্হ্য আউলিয়া পীর হযরত শাহা কামাল দরবার শরীফ। মোট জনসংখ্যা রয়েছে প্রায় ১৮ হাজার, ভোটার সংখ্যা ১০ হাজার। নারী পুরুষ প্রায় সমান। অধিকাংশ মানুষের আয়ের উৎস কৃষি নির্ভরশীলতার উপর। স্বাধীনতার পরবর্তীতে এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সমর্থিত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে ৩ বার। বিএনপির সমর্থিত ৪ বার। সর্বশেষ ২০১৬ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এখনও এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সমর্থনে শতকরা ৬০ ভাগ ভোটার রয়েছে বলে নেতাকর্মীরা মনে করছেন।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান রেজাউল ইসলাম নান্না বলেন, দলের বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচন করিনি। দলীয় প্রতিক একটি রাজাকার পরিবারের হাতে তুলে দেওয়ায় কর্মীদের ক্ষোভের মুখে প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গ্রাম হবে শহর বাস্তবায়নে বিগত ৫ বছরে ইউনিয়নের উন্নয়নমুখি ৩০ কোটি টাকার কাজ সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হয়েছে। দলের দুঃসময়ে জোট সরকারের আমলে বিভিন্ন মামলায় হয়রানি নির্যাতিত হয়েও কখনও দলের হাল ছাড়েনি। কর্মীদের সংগঠিত করে রেখেছেন। ১৯ বছর ধরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। দলের ত্যাগী নিবেদিত একজন কর্মী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন তিনি।
ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক ফরিদুল ইসলাম ফরিদ বলেন, ছাত্রজীবন থেকে ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে ৭ বছর ধরে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, পুর্নরায় আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০১ সালে মামলা হামলার শিকার হয়েও দলের সঙ্গে মিশে আছি। সাধারণ কর্মীসহ জনগণের ভালবাসায় দলীয় মনোনয়ন দাবি করছেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পনা গ্রাম হবে শহর এটি বাস্তবায়নে নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমে পরিবর্তন। প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা প্রদানে অনিয়মসহ স্বজনপ্রীতি ও সুসম বন্টন করতে পারেনি বর্তমান চেয়ারম্যান।
শিক্ষক মনি শংকর হালদার বলেন, দলের কমিটিতে কোন পদে না থাকলেও একজন কর্মী হিসেবে মনোনয়ন দাবি করছেন তিনি। ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নাঈম আল মামুন লিয়ন বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন কর্মী হিসেবে পারিবারিক সূত্রে তার পিতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য থাকার সুবাধে। ছাত্রজীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে। দীর্ঘদিন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছন তিনি। সাধারণ কর্মীদেরকে সঙ্গে নিয়েই দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। জেলা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি লীগের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান খোকন বলেন, ৯ বছর ধরে ইউয়িন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ২০০১ জোট সরকারের আমলে তার পরিবার সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত হয়েছেন। দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন তিনি।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *