প্রচারণা শেষ, ৫৪ ঘণ্টা মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

রাজনীতি লিড ১

ডেস্ক রিপোর্ট : দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে আজ। একইসঙ্গে আজ রাত ১২টা থেকে ৫৪ ঘণ্টার জন্য মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৬টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১১ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার)।

ইসি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইন অনুযায়ী ভোটগ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা পূর্বে প্রচার কাজ বন্ধ করতে হয়। ভোটগ্রহণ শুরু হবে ১১ নভেম্বর সকাল ৮টায়। তাই প্রচার বন্ধ করতে হবে মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) রাত ১২টার মধ্যে। এছাড়া ভোট উপলক্ষে ২৪ ঘণ্টার জন্য বন্ধ থাকবে সব ধরনের ইঞ্জিনচালিত যান চলাচল। এই সময় শুধু ইসির অনুমোদন নেওয়া মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য যান চলাচল করতে পারবে।

এক নির্দেশনায় ইসি জানায়, আগামী ১১ নভেম্বর দেশের ৬২টি জেলার ৮৪৮টি ইউপিতে দ্বিতীয় ধাপের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে ৯ জুন নভেম্বর (মঙ্গলবার) মধ্যরাত (রাত ১২টা) থেকে ১২ নভেম্বর (শুক্রবার) সকাল ৬টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল এবং ১০ নভেম্বর (বুধবার) মধ্যরাত (রাত ১২টা) থেকে ১১ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) মধ্যরাত (রাত ১২টা) পর্যন্ত সব ধরনের ইঞ্জিনচালিত নৌযান ও যন্ত্রচালিত যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

আরও জানানো হয়, নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তা, ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের বহনকারী গাড়ি, মহাসড়কে চলাচলকারী দূরপাল্লার গাড়ি, বন্দর ও জরুরি পণ্য পরিবহনের গাড়ি নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে। এছাড়া প্রার্থী ও তার এজেন্টদের গাড়ি, সাংবাদিক, নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের গাড়ি, ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স, বিদ্যুৎ, গ্যাস, টেলিযোগাযোগ ও ডাকের গাড়ির ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। জরুরি প্রয়োজনে রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে অন্য কারো গাড়িও চলতে পারবে।

এর আগে ইসি জানায়, দ্বিতীয় ধাপের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে চেয়ারম্যান পদে ৮১ জন প্রার্থী বিনা-প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এসব ইউপির মধ্যে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন ৪ হাজার ৭৫ জন। বাছাই ও প্রার্থিতা প্রত্যাহার শেষে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ৩ হাজার ৩১০ জন। সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন ৯ হাজার ৪৯৮ জন। বাছাই ও প্রার্থিতা প্রত্যাহার শেষে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ৯ হাজার ১৬১ জন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ৭৬ জন।

সাধারণ সদস্য পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন ৩০ হাজার ৮৮৩জন। বাছাই ও প্রার্থিতা প্রত্যাহার শেষে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ২৮ হাজার ৭৪৭ জন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ২০৩ জন প্রার্থী। ইতোমধ্যে প্রথম ধাপে ৩৬৯ ইউপিতে নির্বাচন সম্পন্ন করেছে ইসি। তৃতীয় ধাপে আগামী ২৮ নভেম্বর ১০০৩ ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *