প্রাচীর ও শৌচাগার ভেঙে দোকান নির্মাণের অভিযোগ

সারাবাংলা

রফিকুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম থেকে : কুড়িগ্রাম কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের উত্তর-পশ্চিম পার্শ্বে টার্মিনালের প্রবেশ মুখে অবস্থিত শৌচাগার সহ টিকিট ঘরের জায়গা নিয়ম বহির্ভূতভাবে দখল ও বাস টার্মিনালের প্রচীর ভেঙ্গে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ করেছে কুড়িগ্রাম জেলা মটর মালিক সমিতি।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কুড়িগ্রাম কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের উত্তর-পশ্চিম পার্শ্বে টার্মিনালের প্রবেশ মুখে অবস্থিত শৌচাগার সহ টিকিট ঘরের জায়গা নিয়ম বহিভর্‚ত ভাবে দোকান ঘর হিসেবে জনৈক ব্যক্তির কাছে কুড়িগ্রাম পৌরসভা বরাদ্দ দেয়। টার্মিনালের অভ্যন্তরে জায়গার সংকুলান না হওয়ায় শৌচাগার সংলগ্ন ফাঁকা জায়গায় বিভিন্ন স্থান হতে দুরপাল্লার গাড়ি সমূহ পার্কিং সহ যাত্রী উঠা নামানোর কাজে ব্যবহৃত হয়। যাত্রী সাধারণ সহ বাসের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য সরকার কর্তৃক বাস টার্মিনাল নির্মিত হয়েছে। কিন্তু উক্ত ফাঁকা জায়গায় দোকান ঘর নির্মাণ করা হলে গাড়ি পার্কিং সহ যাত্রী সাধারণের চলাচল একে বারেই অসম্ভব হয়ে পড়বে। টার্মিনাল চত্ত¡রে যত্রতত্র অবৈধ দোকান ঘর গড়ে উঠায় এবং দোকান ঘরগুলি সারারাত্রি খোলা থাকায় প্রতিনিয়ত গাড়ির ব্যাটারী, খুচরা যন্ত্রাংশ সহ মূল্যবান সামগ্রী হারিয়ে যাচ্ছে। নতুন করে দোকান ঘর নির্মাণ হলে তা বহুগুণে বেড়ে যাবে। অবৈধ দোকান ঘর উচ্ছেদ সহ টার্মিনালের প্রয়োজনীয় সংস্কার কাজ করার বিষয়ে কুড়িগ্রাম পৌর মেয়র বরাবর একাধিকবার লিখিত ভাবে জানিয়েছে কুড়িগ্রাম জেলা মটর মালিক সমিতি। এদিকে গত ৩ জানুয়ারী সকালে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক কুড়িগ্রাম বাস টার্মিনাল এলাকায় এসে প্রাচীর ভাঙ্গার অভিযোগে সকল সংস্কার কাজ বন্ধ করে দেয়। এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম জেলার মটর মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব লুৎফর রহমান বকসী জানায়, কুড়িগ্রাম পৌরসভা কর্তৃপক্ষ সংস্কার কাজ সহ বিবিধ বিষয়ে কোন ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ না করে অপরিকল্পিত ও মাস্টার প্লান বহির্ভূত ভাবে নতুন করে দোকান ঘর নির্মাণ হলে গাড়ি পার্কিং যাত্রী উঠা নামা করা মারাত্মক অসুবিধার সৃষ্টি হবে এবং প্রতিনিয়ত দোকানদারদের সহিত যাত্রী ও গাড়ির স্টাফদের মধ্যে দ্ব›দ্ব লেগে থাকবে। এ কারণে ফাঁকা জায়গায় দোকান ঘর নির্মাণ বন্ধ সহ অবৈধ দোকান ঘর উচ্ছেদ করা হোক। এ ঘটনায় কুড়িগ্রাম পৌর মেয়র আব্দুল জলিল জানায়, কুড়িগ্রাম কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকায় পরিত্যাক্ত শৌচাগারটি জনৈক ব্যক্তির কাছে বরাদ্দ দেয়া হলেও কুড়িগ্রাম জেলা মটর মালিক সমিতির আবেদনের প্রেক্ষিতে পৌরসভার অনুমতি ব্যতিরেখে বাস টার্মিনালের পশ্চিম পার্শ্বে নির্মাণ কাজ যা শুরু করা হয়েছিল তা বন্ধ করণের জন্য ইতোমধ্যে উক্ত ব্যক্তিকে চিঠি দেয়া হয়েছে। আমরা কাগজপত্র পর্যালোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *