ফেরি না থাকায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন : রাঙ্গাবালীতে স্পীডবোট দুর্ঘটনায় চলতি বছরে নিহত ৭

সারাবাংলা

জাওয়াদুল কবির প্রিতম, রাঙ্গাবালী থেকে : সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় প্রতিনিয়ত বাড়ছে নৌ-দুর্ঘটনা। চলতি বছরে ১০ মাসেই এ উপজেলায় আসা-যাওয়ার প্রধান নৌ-পথ আগুনমুখা নদীতে স্পীডবোট দুর্ঘটনায় প্রান হারিয়েছেন ৭ জন। গুরুতর আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন অনেকেই। ফেরির ব্যবস্থা না থাকায় সড়ক পথে যোগাযোগ নেই বলেই যাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত স্পীডবোটে নদী পারাপার হচ্ছেন দাবি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার।
গত ২২ অক্টোবর বিকেল ৫টার দিকে দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে চলাচলকালে দুর্ঘটনার শিকার হয় একটি স্পীডবোট। আহমেদ এন্টারপ্রাইজের অধিনস্থ রুমেন-১ নামের যাত্রীবাহী ওই বোটটি রাঙ্গাবালীর কোড়ালীয়া থেকে গলাচিপার পানপট্টির উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এসময় ১৮ জন যাত্রী সহ আগুনমুখা নদীর মাঝখানে ডেউয়ের আঘাতে উল্টে যায়। তখন সাঁতার কেটে চালক সহ ১৩ জন কিনারে পৌঁছাতে পারলেও বাকি ৫ জন পানিতে নিমজ্জিত হয়ে নিখোঁজ রয়ে যায়। পরে ঘটনার ৩৬ ঘণ্টা পর ২৪ অক্টোবর ভোরে ভাসমান অবস্থায় রাঙ্গাবালী থানার পুলিশ কনষ্টেবল মো. মহিবুল হক, কৃষি ব্যাংক বাহেরচর শাখার পরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমান, আশা ব্যাংকের খালগোড়া শাখার ঋণ কর্মকর্তার কবির হোসেন ও দিনমজুর মো. ইমরান ও মো. হাসান মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
এর আগে চলতি বছরেরর ৬ জানুয়ারী আগুনমুখা নদীতে পায়রা বন্দরের স্পীডবোটের সঙ্গে আহমেদ এন্টারপ্রাইজের যাত্রীবাহী স্পীডবোটের সংঘর্ষ হয়। এতে যাত্রীবাহী স্পীডবোটের ৬ জন যাত্রীসহ বোটটি পানিতে নিমজ্জিত হয়। পরবর্তীতে চারজনকে জীবিত উদ্ধার করা গেলেও হারুন হাওলাদার ও আইয়ুব হাওলাদার নামে দুইজন যাত্রীর মৃতদেহ দুর্ঘটনার পরবর্তী দ্বিতীয় ও চতুর্থদিনে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। ২২ অক্টোবরের ঘটনায় বিআইডব্লিউটিএ এর পক্ষ থেকে মেরিন কোর্টে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় স্পীডবোট চালক ও পরিচালককে আসামি করা হয়।
এদিকে বাহেরচর শাখা কৃষি ব্যাংক ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে রাঙ্গাবালী থানায় চালক সহ ৭ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন। বাদী দেলোয়ার হোসেন জানান, তিনি তার দুই সহকর্মী সহ দুর্ঘটনার শিকার ওই স্পীডবোটে ছিলেন। দেলোয়ার হোসেন ও ফোরকান মিয়া সাতরিয়ে কিনারে উঠতে পারলেও তার সহকর্মী মোস্তাফিজুর রহমান পানিতে ডুবে যায়। পরে ঘটনার ৩৬ ঘন্টা পরে মোস্তাফিজুর রহমানের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। চালকের ব্যার্থতা সহ কয়েকটি অভিযোগ এনে সে মামলাটি দায়ের করেছেন।
রাঙ্গাবালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলী আহম্মেদ জানান, চালক সহ ৭ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা হয়েছে। গ্রেফতারের স্বার্থে আসামিদের নাম এখনই প্রকাশ করতে চাচ্ছি না। আসামী গ্রেফতারের জন্য পুলিশের কয়েকটি দল কাজ করছেন। রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান জানান, নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে এ রুটের স্পীডবোট গুলো নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বেশী ভাড়া নেয়। এছাড়া লাইফ জ্যাকেট ব্যবহার না করে বিপদসংকেত অমান্য করে স্পীডবোট চালায়। এ বিষয়টি আমি বিআইডব্লিইটিএ কর্তৃপক্ষকে আগেও জানিয়েছি। আগুনমুখা নদীতে পানপট্টি-কোড়ালিয়া রুটে নদী পাড়াপাড়ের জন্য ফেরি চালু করা দরকার।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *