শনিবার ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ট্রাম্প-বাইডেনের চমকের অপেক্ষায় বিশ্ব

নভেম্বর ২, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আর মাত্র একদিন বাকি। ট্রাম্প-বাইডেন শেষ পর্যন্ত মার্কিনীদের কী চমক দেখাবেন সেটা দেখার জন্য অপেক্ষা করছে গোটা দেশ। এবারের নির্বাচনের সব সমীকরণ উল্টে দিয়ে গতবারের মতো এবারও চমক দিতে চাইছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাম্প। ৩ নভেম্বর চূড়ান্ত বিজয় ছিনিয়ে নিতে শেষ মুহূর্তের প্রচারে এখন তাই মরিয়া ট্রাম্প শিবির।

এ লক্ষ্যে দু’দিনের ব্যাপকভিত্তিক প্রচারে নেমেছে তারা। শেষ মুহূর্তে মূলত ব্যাটল গ্রাউন্ড বা রণক্ষেত্র হিসেবে পরিচিত অঙ্গরাজ্যগুলোর ওপর জোর দিচ্ছেন ট্রাম্প। শনিবার পেলসিলভানিয়ায় চারটি সমাবেশে অংশ নেন তিনি।

জনমত জরিপের ফলকে মিথ্যা প্রমাণ করে, পিছিয়ে থাকা অবস্থা থেকে জয় ছিনিয়ে আনার লক্ষ্যে দোদুল্যমান অঙ্গরাজ্যগুলোতে শেষ দুদিনের প্রচার শুরু করেছেন ট্রাম্প। রবিবার থেকে শুরু হওয়া প্রচারে রিপাবলিকান প্রার্থী সেইসব অঙ্গরাজ্যে সমাবেশ করেন, যেগুলোর ফলের ওপর নির্ভর করছে আরও চার বছর তার হোয়াইট হাউসে থাকা হবে নাকি জর্জ বুশের পর তিনিই হতে যাচ্ছেন প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট যিনি এক মেয়াদের বেশি টিকতে পারলেন না।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে মহামারি মোকাবেলায় ট্রাম্পের অদক্ষতাকে প্রচারের মূল হাতিয়ার বানানো বাইডেন রবিবার সারাদিন পেনসিলভানিয়ায় র‌্যালি ও সমাবেশ করেন। শেষ দুইদিনের প্রচারে ট্রাম্পের মোট ১০টি সমাবেশে অংশ নেয়ার কথা রয়েছে। দিনে পাঁচটি করে। ক্ষমতাসীন এ রিপাবলিকান প্রেসিডেন্টের লক্ষ্য, প্রচারে সাড়া ফেলে নির্বাচনের দিন মঙ্গলবার নিজের পক্ষে বিপুল জন রায় নেয়া। রবিবার ট্রাম্প মিশিগান, আইওয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, জর্জিয়া ও ফ্লোরিডার সমাবেশ করেছেন। সোমবার তার প্রচার সূচীতে আছে নর্থ ক্যারোলাইনা, পেনসিলভানিয়া ও উইসকনসিনে একটি এবং মিশিগানে দুটি সমাবেশ। মিশিগানের গ্র্যান্ড রেপিডসে রাতের সমাবেশের মধ্য দিয়ে ট্রাম্পের প্রচার আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হবে। একই জায়গায় ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারও শেষ করেছিলেন ট্রাম্প। চার বছর আগের ওই নির্বাচনে রিপাবলিকান এ প্রার্থী মিশিগান, পেনসিলভানিয়া ও উইসকনসিনের মতো কয়েক দশক ধরে ডেমোক্র্যাটদের স্তম্ভ হিসেবে পরিচিত অঙ্গরাজ্যগুলোতে জিতে বিপক্ষ শিবিরকে স্তম্ভিত করে দিয়েছিলেন।

মধ্যাঞ্চলীয় উইসকনসিন ও মিশিগান রাজ্যে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। তবে অ্যারিজোনা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় দুজনের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। ২০১৬ সালের নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প এই চারটি অঙ্গরাজ্যের সবগুলোতেই বিজয়ী হয়েছিলেন। এর যেকোনো একটিতে হারলে ট্রাম্পের জন্য ২৭০টি ইলেক্টোরাল ভোট সংগ্রহ করা কঠিন হয়ে পড়বে। এসব রাজ্যকে বলা হচ্ছে ব্যাটলগ্রাউন্ড। মূলত এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে উল্লিখিত এই চারটিসহ মোট আট রাজ্যে।

৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এর মাত্র তিনদিন আগে সিএনএন পরিচালিত এই জরিপের ফল প্রকাশ করা হলো। তাতে দেখা যাচ্ছে, যারা আগাম ভোট দিয়েছেন তাদের ভোট পাওয়ার ক্ষেত্রেও বাইডেন বড় ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। এই ব্যবধানই চূড়ান্ত বিজয়ের বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে পারে।

একটি জরিপে বলা হয়েছে অ্যারিজোনায় সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন শতকরা ৫০ ভাগ ভোট পাবেন আর ট্রাম্প পাবেন ৪৬ ভাগ। অন্যদিকে উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে ৫২ শতাংশ ভোট পাবেন জো বাইডেন, সেখানে ডোনাল্ড ট্রাম্প পাবেন ৪৪ শতাংশ ভোট। ফলে নির্বাচনের শেষ কয়েকদিনে মধ্য-পশ্চিমাঞ্চলীয় দোদুল্যমান অঙ্গরাজ্যগুলোর ভোটারদের মন জয়ের চেষ্টায় জোর প্রচারণা চালাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন। এই রাজ্যগুলোর ভোট আসন্ন এই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়-পরাজয়ের ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
সর্বশেষ

গণকমিশনের ভিত্তি নেই, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা প্রতিদিন অনলাইন || আজ শুক্রবার (২০ মে) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনালের ২৭তম বার্ষিক সম্মেলন শেষে

Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031