বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ বল সুন্দরী কুল

সারাবাংলা

রাজিবুল হক সিদ্দিকী, কিশোরগঞ্জ থেকে : দেখতে অনেকটা আপেলের মতো। ওপরের অংশে হালকা সিঁদুর রং। আর খেতে বেশ সুস্বাদু, রসালো ও মিষ্টি। নাম বল সুন্দরী কুল। ইন্ডিয়ান জাতের এই কুল চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় এবারই প্রথম বল সুন্দরী কুল চাষ করেছেন বিদেশ ফেরত কৃষক শফিক মিয়া। তিনি উপজেলার আদিত্যপাশা গ্রামের বাসিন্দা। কিশোরগঞ্জ জেলায় এই প্রথম কোনো কৃষক বাণিজ্যিকভাবে বল সুন্দরী কুল চাষ করেছেন বলে জানিয়েছে উপজেলা কৃষি কার্যালয়।

সরেজমিন আদিত্যপাশা গ্রামে জানা যায়, গ্রামের মৃত কিতাব আলীর ছেলে শফিক মিয়া নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে ২০১৬ সালে সৌদি আরব যান। কিন্তু সেখানে গিয়ে ভালো কাজ না পেয়ে ২০১৮ সালের শেষ দিকে ফিরে আসেন দেশে। তারপর চাষাবাদে মন দেন বাবার কৃষি জমিতে। শফিক মিয়া এর আগে কাশ্মীরি কুল চাষ করেছেন। এবারই তিনি প্রথম বল সুন্দরী কুল চাষ করেছেন।

শফিক মিয়া এক বিঘা জমিতে ২০০টি কুলের চারা রোপণ করেন। রোপণের ছয় মাস পর ফল এসেছে প্রতিটি গাছে। ১৫ থেকে ২০টি কুল এক কেজি ওজন হয়। বাগানেই ১০০-১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে এসব কুল। কীটনাশকমুক্ত ফল হওয়ায় বাগান থেকেই কুল কিনে নিয়ে যাচ্ছেন ক্রেতারা। এই কুল চাষ করে প্রথম বছরেই ভালো ফলন পেয়েছেন শফিক মিয়া। তাই তিনি আগামীতে আরও বেশি জমিতে কুল চাষ করবেন বলে জানিয়েছেন। আকর্ষণীয় রং ও সাইজ আপেলের মতো হওয়ায় ক্রেতাদের মধ্যে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে এই কুলের।

কৃষক শফিক মিয়া বলেন, উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের পরামর্শে আমি বল সুন্দরী কুল চাষ করেছি। এই কুল চাষে আমার ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এরই মধ্যে আমি ৭৫ হাজার টাকার কুল বিক্রি করেছি। সব মিলিয়ে ১ লাখ ২০ হাজার টাকার কুল বিক্রি করতে পারব বলে আশা করছি। আগামী বছরে আমার এ বাগান থেকে আরও অনেক বেশি লাভ হবে। তিনি বলেন, অন্য কৃষক ভাইদের বলবো, তারাও যেন বল সুন্দরী কুল চাষ করেন। কারণ এই কুল খুব দ্রুত ফলন দেয়। এই কুল চাষ করে তারা ভালো লাভবান হতে পারবেন। আমি মনে করি বেকারত্ব দূর করতেও এই কুল চাষ ভূমিকা রাখবে। উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ বলেন, বল সুন্দরী কুলের আকৃতি তুলনামূলক অনেকটা বড়। খেতেও সুস্বাদু এবং বাজার মূল্যও ভালো। ফলে বল সুন্দরী কুল কৃষকের কাছে জনপ্রিয় জাত হিসেবে পরিণত হয়েছে। রোপণের ছয় মাস পর থেকেই ফল পাওয়া যায়। যা বিক্রি করে বাগান স্থাপনের খরচ ওঠানোসহ লাভবান হওয়ার সুযোগ রয়েছে। কিশোরগঞ্জ জেলায় এই প্রথম বল সুন্দরী
কুল চাষ করেছেন বিদেশ ফেরত যুবক শফিক মিয়া।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *